‘বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে ৩৬৫ কোটি টাকা’

0
70

1447561501বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে (আঙ্গুলের ছাপ) মোবাইল সিম নিবন্ধনের জন্য গ্রাহকদের নিকট থেকে এই পর্যন্ত “৩৬৫ কোটি টাকা” হাতিয়ে নেওয়া অভিযোগ উঠেছে। নিবন্ধনের জন্য অপারেটর কর্তৃক নির্ধারিত এজেন্টদের প্রতিটি সিম নিবন্ধনের জন্য ১ টাকা ৮৫ পয়সা হারে কমিশন দেওয়া হলেও তারা গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রতি সিমে ২০ টাকা করে নিয়েছেন।

এমনকি গতকাল শুক্রবার ১০০ টাকা পর্যন্ত গ্রাহকদের কাছ থেকে আদায় করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে ‘বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েসশন’র পক্ষ থেকে।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন এসোসিয়েশনটির সভাপতি ও ভোক্তা অভিযোগ নিষ্পত্তি উপ-কমিটি (ক্যাব) এর সদস্য সচিব মহিউদ্দিন আহমেদ। এসময় অনন্যাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবু বকর সিদ্দিক, দপ্তর সম্পাদক কাজী আমান উল্লাহ মাহফুজ প্রমুখ।

এসোসিয়েশনের সভাপতি বলেন, “আমরা দেশের সাতটি বিভাগে মাঠ পর্যায়ে সার্ভে করে দেখেছি রিটেইলাররা প্রতিটি সিম নিবন্ধনের জন্য গ্রাহকদের কাছ থেকে ২০ টাকা করে নিয়েছেন। মেয়াদ শেষের দিকে ৫০ থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত নেওয়া হয়েছে গ্রাহকদের কাছ থেকে। এমনকি গতকাল দীর্ঘ লাইনে দাড়িয়েও মানুষ নিবন্ধন করতে পারেনি। নানা ধরনের হয়রানি ও প্রতারণার হয়েছে গ্রহকরা”।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘এই পদ্ধতির বিষয়ে প্রথমে গণশুনানির প্রয়োজন ছিল। জনমত যাচাই করে এই প্রক্রিয়া শুরু করলে আজ এত সব সমস্যা হতো না। সাধারণ মানুষকেও মারাত্মক ভোগান্তি পোহাতে হতো না’। এসোসিয়েশন এর পক্ষ থেকে নিবন্ধন প্রক্রিয়ার সময় আরো বৃদ্ধি করারও দাবি জানান তিনি।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম ঘোষণা দিয়েছেন ৩০ এপ্রিল রাত ১০টার মধ্যে বায়োমেট্রিক (আঙ্গুলের ছাপ) পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন না করলে অনিবন্ধিত সিম ১ মে থেকে ৩ ঘণ্টার জন্য বন্ধ রাখা হবে।

উল্লেখ্য, গতবছরের ১৬ ডিসেম্বর আঙ্গুলের ছাপে সিম নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু হয়ে এবছরের ৩০ এপ্রিল (আজ শনিবার) শেষ দিন হলেও বিটিআরসি’র তথ্য মতে এখনো পর্যন্ত ৫৫ ভাগ সিম নিবন্ধন হয়েছে। অনেকে আঙ্গুলে ছাপ না মেলায় নিবন্ধন করতে পারেন নি, এর পরিমাণ ২১ লাখেরও বেশি। গতকাল সার্ভার সমস্যার কারনে বেশ কয়েক ঘন্টা নিবন্ধন প্রক্রিয়া বন্ধ ছিল। এতে অপারেটর ও নির্বাচন কমিশন নিজেরদের স্বচ্ছ দাবি করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here