নিউইয়র্কে প্রবাসী মতলব সমিতির জমজমাটঅভিষেক ও বর্ষবরণ

 

 

IMG_5257বর্ণমালা ডেস্ক : প্রবাসের অন্যতম আঞ্চলিক সংগঠন প্রবাসী মতলব সমিতির নব নির্বাচিত কমিটির জমজমাট অভিষেক সম্পন্ন হয়েছে, সেই সাথে বরণ করে নেয়া হয়েছে বাংলা নব বর্ষকে। পারিবারিক আমেজ ও সৌহার্দ্য- সম্প্রীতির এই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি সাকিল মিয়া। সহ সভাপতি রাবেয়া বসরী ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিয়া ফয়েজ আহমেদের পরিচালনায় হল ভর্তি অনুষ্ঠানে অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন একুশে পুরস্কারপ্রাপ্ত ভাষা সৈনিক শামসুল হুদা, বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম হাওলাদার, বাংলাদেশ স্পোর্টস কাউন্সিলের সভাপতি ও সোসাইটির সহ সভাপতি মহিউদ্দিন দেওয়ান, বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতির সাধারণ সম্পাদক মিয়া মোহাম্মদ দুলাল, রূপসী চাঁদপুর ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ফখরুল ইসলাম মাছুম, প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মোহাম্মদ কবির রতন, আদিম মুক্তাদির সাহাদাৎ, গোলাম সারোয়ার দুলাল, সৈয়দ ইলিয়াস, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মিয়া ওবায়েদুর রহমান, প্রধান সমন্বয়কারী মোহাম্মদ ফয়েজ উল্লাহ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোহাম্মদ মহসীন, আহবায়ক রবিউল আলম, যুগ্ম সদস্য সচিব নাজির উদ্দিন পাটোয়ারি প্রমুখ।
একুশে পদকপ্রাপ্ত ভাষা সৈনিক শামসুল হুদা বলেন, আমি কানাডাসহ অনেক দেশ ভ্রমণ করেছি। সেই দেশে বাংলাদেশীদের অনুষ্ঠানে গিয়েছি। এই সব অনুষ্ঠান আমার কাছে ভাল লেগেছে। বিশেষ করে আয়োজকদের উদ্যোগ ও আয়োজন দেখে। আমার কাছে মনে হয়েছে প্রবাসী বাংলাদেশীরাIMG_5239 বাংলা সংস্কৃতিকে ভালবাসেন বলেই এসব অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। তিনি বলেন, বাংলা নব বর্ষ বাঙালির সার্বজনীন উৎসব। দল মত, ধর্ম, বর্ণ সবাই মিলে এ অনুষ্ঠান পালন করেন। এমন কি আদিবাসিরাও এই দিবসটি পালন করে। তিনি বলেন, মূলত: স¤্রাট আকবরের আমল থেকেই এই দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। তিনি বলেন, বর্ষবরণ এমন একটি অনুষ্ঠান যার মাধ্যমে আমাদের জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করা সম্ভব।
সভাপতি সাকিল মিয়া অনুষ্ঠানকে সফল ও স্বার্থক করার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, প্রবাসে জন্ম নেয়া এবং বেড়ে ওঠা নতুন প্রজন্মের কাছে আমাদের হাজার বছরের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে তুলে ধরার জন্য আমরা গত তিন বছর ধরে ( সংগঠনের প্রতিষ্ঠার পর) আয়োজন করে আসছি। আমাদের এই অনুষ্ঠানে কম্যুনিটি নেতৃবৃন্দের পাশাপাশি আমাদের পরিবারের সদস্যরাও অংশগ্রহণ করেন। তিনি বলেন, মতলব সমিতি আমরা একটি পরিবারের মত। আমরা এই ঐতিহ্য ধরে রাখতে চাই। গত তিন বছরে আমাদের যারা সহযোগিতা করেছেন তাদের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ। আগামীতে আপনারা সহযোগিতায় আমরা এগিয়ে যাবো। মা দিবসে তিনি সকল মাদের অভিনন্দন জানান।
সাধারণ সম্পাদক মিয়া ওবায়েদুর রহমান সকলকে ধন্যবাদ জানান অনুষ্ঠান সফল ও স্বার্থক করার জন্য।
অভিষিক্ত কর্মকর্তারা হলেন সভাপতি সাকিল মিয়া, সহ সভাপতি রবিউল আলম, সহ সভাপতি রাবেয়া বরসী, সাধারণ সম্পাদক মিয়া ওবায়েদুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ভবোতোষ চন্দ্র সাহা, মিয়া ফয়েজ আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজির উদ্দিন পাটোয়ারি, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবীর, কোষাধ্যক্ষ ফারুক হোসেন পাটোয়ারি, যুগ্ম কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ মঈন উদ্দিন, ক্রীড়া সম্পাদক এস এম হাবিবুর রহমান, প্রচার সম্পাদক মোহাম্মদ জয়নাল আবেদীন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক আবু নাসের পাটোয়ারি, সাহিত্য সম্পাদক সারোয়ার ফারুক হোসেন, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মোহাম্মদ কে আলম, দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ মিয়া সোমেল, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক অপু হোসেন, কার্যকরিIMG_5241 সদস্য মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সরকার, জিল্লুর রহমান, এম এ সাত্তার, গৌতম সরকার, আব্দুল হক গাজী, আব্দুর রহিম, মাসুদ আহমেদ ও ফরিদ আহমেদ সরকার। নবনির্বাচিত কমিটির সদস্যদের শপথ বাক্য পাঠ করার ইঞ্জিনিয়ার সাঈদ।
প্রবাসী মতলব সমিতির এই অনুষ্ঠানে ছিলো হল ভর্তি মানুষ। এমন কি আসন সা পেয়ে অনেকেই দাঁড়িয়েছিলেন, আবার কেউ কেউ কেটে পড়েছে। দেখার মত বিষয় ছিলো এই অনুষ্ঠানে সবাই তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে এসেছেন। সংক্ষিপ্ত আলোচনা শেষে প্রাণভারে উপভোগ করেছেন প্রবাসের জনপ্রিয় শিল্পী শাহ মাহবুব, জিন্নাত রেহানা রত্মা ও সৃজনী সঙ্গীতালয়ের পরিবেশনা। বিশেষ করে শাহ মাহবুব এবং রত্মা ছিলো অপ্রতিরোধ্য। তাদের গানে বাধ্য হয়ে অনেকেই মঞ্চে উঠে নাচের আনন্দে মেতে উঠেছিলেন। অন্যদিকে আয়োজকদের কষ্টও স্বার্থক, তৃপ্ত তারা মতলববাসীকে আনন্দ দিতে পেরে। হলটা বড় হলে আয়োজন হতো সোনায় সোহাগা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here