বান্দরবনে ভিক্ষু হত্যার প্রতিবাদে নিউইয়র্কে বক্তারা বলেন- ইমাম-পাদ্রী-ভিক্ষু হত্যা একসূত্রে গাঁথা

Buddhhist protet.New York00
বর্ণমালা নিউজ (নিউইয়র্ক): বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারি এলাকার চাকপাড়ায় পচাত্তর বছর বয়সী বৌদ্ধ ভিক্ষু মং সু উচাককে হত্যার প্রতিবাদে নিউইয়র্কে ‘বুদ্ধিস্ট কমিউনিটি অব বাংলাদেশ’ প্রতিবাদ বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে। সমাবেশ থেকে সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে একই কায়দায় ধর্মীয় প্রধানদের হত্যার প্রতিবাদ করে বলা হয় মসজিদে ইমামকে, গীর্জায় পাদ্রীকে হত্যার পর উগ্রজঙ্গীবাদী গোষ্টী বান্দরবানে ধ্যানরত অশতিপর ভিক্ষু মং সু উচাককে হত্যা করেছে। এসব হত্যাকান্ড একই সূত্রে গাঁথা। সমাবেশ থেকে সরকারকে প্রকৃত অপরাধীকে গ্রেফতার করে দেশের বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মধ্যে আস্থা ফিরিয়ে আনার আহ্বান জানানো হয়।
স্বীকৃতি বড়–য়ার পরিচালনায় সমাবেশে নিউইযর্কে বাংলাদেশী বৌদ্ধদের প্রধান সত্যানন্দ থেরো ভিক্ষু বলেন, বৌদ্ধরা শান্তিপ্রিয় এবং শান্তির ধর্ম বৌদ্ধধর্ম- মং সু উচাককে হত্যার মধ্যে দিয়ে দেশে বৌদ্ধদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করা হয়েছে। সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একে পারিবারিক হত্যাকান্ড বলে প্রচার করে হত্যাকারীদের দায়মুক্তি দিচ্ছেন।
বাংলাদেশে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ যুক্তরাষ্ট্র শাখার প্রধান উপদেষ্টা শিতাংশু গুহ বলনে মৌলবাদের উত্তানের কারণে বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের প্রতিদিনই খুন করা হচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় আজ ৭৫ বছর বয়সী বৌদ্ধ ভিক্ষুকে খুন করা হল। স্বজনরা জড়িত আছে বলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যে ভিত্তিহীন বক্তব্য রেখেছেন, তার তীব্র সমালোচনা করেন তিনি।
অজিত বড়ুয়া তার বক্তব্যে বলেন বৌদ্ধ ভিক্ষুরা শান্তিপ্রিয়, তারা শান্তির বাণী প্রচার করে, তাদের সাতে কারো বিবেদ নেই। কিন্তু যে নরপশুরা ধ্যানরত অবস্থায় এই বৌদ্ধ ভিক্ষুকে হত্যা করেছে, তাদের বিচার এই প্রবাস থেকে আমরা দাবী করছি।
প্রবীর বড়ুয়া বলেন বাংলাদেশে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের উপর একের পর এক আক্রমন হচ্ছে, কিন্তু একটি ঘটনারও বিচার হচ্ছেনা বলেই আজ আরও একজন বৌদ্ধ ভিক্ষুকে প্রান দিতে হল। তিনি হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবী জানান।
সুবীর বড়ুয়া তার প্রতিবাদে বলেন বাংলাদেশে আজ বিচারহীনতার সংস্কৃতি বিরাজ করছে। নারী, শিশু, সংখ্যালঘুরা প্রতিদিনি খুন হচ্ছে, ধর্ষিত হচ্ছে। তিনি বলেন একজন ৭৫ বছর বয়সী বৌদ্ধ ভিক্ষুকে যারা হত্যা করতে পারে, তাদের কোন ধর্ম নেই, তাদের কোন ধর্ম থাকতে পারেনা। তিনি এই হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা জানান।
বক্তারা আরো বলেন মসজিদের ইমাম, মন্দিরের পুরোহিত বা বৌদ্ধ ভিক্ষু বাংলাদেশে কেউ আজ নিরাপদ নন। সরকার যদি এই মৌলাবাদীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থ্যা না নেন, তাহলে বাংলাদেশে এরকম হত্যাকান্ড আরো ঘটবে। বাংলাদেশেকে বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।অন্যানের মধ্যে সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন উর্মি বড়–য়া, অজিত বড়–য়া, বিশ্বন্তর বড়–য়া, বিনয়ন চাকমা, লারি মং, সৃষ্টি বড়–য়া, চিচিম বড়ুয়া, রূপক বড়ুয়া, মোহাম্মদ আলী বাবুল, বিনয় চাকমা, দুলাল সিং, শিশির বড়ুয়া, পাথই মং, ইষান বড়–য়া, মিনতি বড়–য়া,লা মে রাখাইন, মেরিনা বড়–য়া, মা সু উই মারমা, আ মারি রাখাইন, টিটু বড়–য়া শিশু নিয়ন চাকমা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here