নিউইয়র্কে দুর্বৃত্তের হামলার শিকার বাংলোদেশী সিরাজ

এনা, নিউইয়র্ক : বাংলাদেশী অধ্যুষিত ব্রঙ্কসে গত ২১ মে শনিবার রাতে দুর্বৃত্তের হামলার শিকার হয়েছেন বাংলাদেশী কম্যুনিটির পরিচিত মুখ, বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতির সাবেক সহ সভাপতি ও জ্যাকসন হাইটসের ফুডকোর্ট ও জ্যাকসন হাইটস বাজারের সাবেক শেয়ারহোল্ডার সিরাজুল ইসলাম খান। সিরাজুল ইসলাম খান গত ২৪ মে জানান, ২১ মে ছিলো পবিত্র শবে বরাতের রাত। আমি বাসাতেই ছিলাম। বাসায় মাগরিবের নামাজ পড়ি।
অঘঅ চওঈনামাজSiarzul Islam0000 শেষে আমার ছেলে আমাকে গ্যারেজ থেকে আমার গাড়িটি সরানোর জন্য বলে। আমি গাড়ি সরালে সে তার গাড়ি নিয়ে চলে েেয়ত পারে। আমি আমার গাড়িটি বের করে রাস্তায় বের হলে একজন কৃষ্ণাঙ্গ লোক হাত উঠালে আমি তাকে আমার ব্ল্যাক গাড়িতে উঠাই, সাথে ছিলো তার বান্ধবী। তাদের গাড়িতে উঠিয়ে আমার বাসা থেকে প্রায় আধা মাইল দূরে তাদের ঠিকানায় পৌঁছাই। তখন সে আমাকে ভাড়া কত জিজ্ঞেস করে। আমি তাকে বললাম ভাড়া ৮ ডলার।
এই সময় সে তার পকেট থেকে ১০ ডলারের একটি নোট বের করে। আমি তাকে চেঞ্জ দিতে যাবো। সে দেখতে পায় আমার হাতে টাকা। তখন আমার কাছে প্রায় ২১০ ডলারের মত ছিলো। আমার হাতে টাকা দেখেই সে আমাকে অতর্কিতে পেছন থেকে ঘুষি মারে। আমি কোন কিছু বুঝার আগেই সে আমাকে একের পর এক ঘুষি মারতে থাকে মাথায়, চোখে ও মুখে। এক সময় আমার কাছ থেকে পুরো টাকা এবং আমার সেল ফোন নিয়ে যায়। আমি গাড়ি থেকে নেমে পালানোর চেষ্টা করলে আমার আগেই সে নেমে যায় এবং জাপটে ধরে আছাড় দিয়ে আমাকে মাটিতে ফেলে দেয় এবং ঘুষি ও লাথি মারতে থাকে। সেই সাথে বলতে থাকে ইউ ব্লাডি মুসলিম, আই উইল কিল ইউ।
এক পর্যায়ে ২ জন মহিলা তার কোমরে ধরে তাকে একটি বিল্ডিং এ নিয়ে যায়। সে চলে যাবার পর রক্তাক্ত অবস্থায় আমি গাড়িতে ফিরে আসি এবং কোন মতে ড্রাইভ করে বাসায় যাই। বাসায় ঢুকতে ঢুকতেই আমার স্ত্রী আমার ছেলেকে কল করে। আমার ছেলে এসে পুলিশকে কল দেয়। পুলিশ এসে আমার কাছ থেকে রিপোর্ট নেয় এবং আমাকে নর্থ ব্রঙ্কস সেন্ট্রাল হাসপাতালে নিয়ে যায়। সারা রাত চিকিৎসা শেষে আমাকে ছেড়ে দেয়। পুলিশ এখনো দুর্বৃত্তকে গ্রেফতার করতে পারেনি।
এ দিকে এই ঘটনার প্রতিবাদে গত ২৩ মে বিকেল ৫টায় ব্রঙ্কসের হলি এভিন্যুস্থ সিরাজুল ইসলাম খানের বাসার সামনে বাংলাদেশ আমেরিকান কম্যুনিটি কাউন্সিলের উদ্যোগে এক প্রতিবাদ সভা ও র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিবাদ সমাবেশের নেতৃত্বে ছিলেন কম্যুনিটি লিডার এন মজুমদার।
অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কংগ্রেসম্যান প্রার্থী কর্নেল পাওয়েল, কম্যুনিটি লিডার নিভার আন্ডো প্যারেজ, ডিস্ট্রিক্ট ম্যানেজার এন্ড্রো সানড্রার, কাউন্সিল মেম্বার রিচি টরেজ, পাবলিক এডভোকেট ল্যাটিশিয়া জেমস, কাউন্সিল মেম্বার এন্ড্রো কোহের প্রতিনিধি। বিক্ষোভে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নজরুল হকম আব্দুর রউফ, আব্দুর রহিম, মনজুর চৌধুরী, জগলুল, আব্দুস শহীদ প্রমুখ।
অন্যদিকে সিরাজুল ইসলাম খানকে দেখতে যান বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি আজমল হোসেন কুনু, জালালাবাদ এসোসিয়েশনের সভাপতি বদরুল হোসেন খান, বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতির সাবেক সভাপতি আজাদ বাকির প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here