দখিন হাওয়া

0
206

polash mahmudআজ পাঠকদের জন্য প্রকাশিত হলো পলাশ মাহবুব-এর রম্য গল্প ‘দখিন হাওয়া’।

মানুষের চোখ কপালে ওঠে।
তিনি তুললেন গলায়। না, নিজের না। দর্শকদের।
কিছুদিন আগে এক ডায়মন্ড কোম্পানির নেকলেসের বিজ্ঞাপন বানিয়ে দর্শকের চোখ গলায় তুলেছেন তিনি। মডেলের টপে নেকলেস ছাড়া আর কিছু ছিল না। ঝিলিক দেয়া নেকলেসের কাঁটায় আটকে যায় মানুষের চোখ।
ডায়মন্ড কুটিরের শ্লোগানটাও বেশ শান দেয়া। ‘গলা উঁচু করে বাঁচো’।
শ্লোগানের সাথে তাল মেলাতে মানুষও গলা উঁচু করে। বিজ্ঞাপন প্রচারের পর শহরে তাই উস্টা খাওয়ার পরিমাণ বেড়ে যায়। গলা উঁচু করতে গিয়ে চলার ঠিক থাকে না সাধারণ মানুষের।
উস্টা যেহেতু খাচ্ছে তার মানে বিজ্ঞাপন হিট।
তো গলা উঁচু করা সেই নির্মাতা হঠাৎ একদিন ফোন দিলেন।
ভাই একটা লুঙ্গির বিজ্ঞাপন বানাবো।
লুঙ্গির বিজ্ঞাপন!
হমম। একশ পার্সেন্ট সুতি।
আরে ভাই সুতি হোক আর জর্জেট হোক, তাই বলে শেষ পর্যন্ত লুঙ্গি!
ক্যান ভাই, লুঙ্গিতে কি সমস্যা?
না। সমস্যা আর কি? লুঙ্গি পড়ে ঘুমালে সকালে সেটা মাথায় উঠে থাকে। এই যা।
হা হা হা। ওটা তো ভাই আপনার সমস্যা। আমার বিজ্ঞাপন বানাইতে কি সমস্যা।

না। সমস্যা ঠিক না। খটকা লাগে আরকি। ক’দিন আগে ছিলেন গলায়। সেখান থেকে একেবারে তলায়!

উঁচু গলার নির্মাতা উঁচু গলায় হাসেন।
গলা-তলা যাই বলেন। একটা মিল কিন্তু আছে।
এরমধ্যেও মিল! যেমন . . .
আগেরবার খুলেছি। এইবার পড়াবো। হা হা হা।
মিল তো ভালোই বের করছেন। তা, নেকলেসের মতো লুঙ্গিও কি মেয়েদের পড়াবেন নাকি?
হতেই পারে। লুঙ্গির কোনও লিঙ্গ বৈষম্য নাই। এবং লুঙ্গিই হচ্ছে সবচাইতে সমাজতান্ত্রিক পোশাক। আপনি ভাই লুঙ্গি নিয়া একটা ফাটাফাটি জিঙ্গেল দেন। এইবার গানের উপ্রে ফান করবো।
গানের ওপরে ফান। তাহলে তো রেডিই আছে। লুঙ্গি ড্যান্স, লুঙ্গি ড্যান্স, লুঙ্গি ড্যান্স . . .
আরে না ভাই। এইটা দেশি লুঙ্গি।
ওমা। দেশি লুঙ্গি তো কি হয়েছে! দেশি লুঙ্গি কি ড্যান্স দিতে পারে না! ড্যান্স কি শাহরুখ খানের একলার?
ধুর ভাই। ড্যান্স-ট্যান্স চলবে না। তারমধ্যে আবার ইন্ডিয়ান গান। মালিক একটু মুসল্লি টাইপ। আপনি একটা ফোক টাইপের জিঙ্গেল লেখেন।
ফোক টাইপ?
হমম। ফোকটা হচ্ছে আমাদের শেকড়ের।
আর লুঙ্গি হচ্ছে আমাদের কোমড়ের। হা হা হা।
ধুর ভাই।
নির্মাতা আমার রসিকতায় যোগ দেয় না।
আচ্ছা। ওরে বানিয়া বন্ধুরে . . . একটা লুঙ্গি কিনিয়া দে . . .। এই টাইপ ফোক চলবে?

হমম। হইতে পারে। এমন একটা সুর দেওয়াবো যাতে মানুষের মইধ্যে মোচড় মারে।

আইডিয়া ভালো। মোচড় মারাইতে পারলে সুবিধা। মোচড় মারলে বাথরুমে যেতে হবে। আর বাথরুমে যেতে হলে লুঙ্গি পড়তে হবে। আর লুঙ্গি পড়তে হলে পড়তে হবে এটিএম . . .

না না না। এটিএম লুঙ্গি আমাদের ক্লায়েন্ট না।
আমার কথা কেড়ে নেন উঁচু গলার নির্মাতা।
তাছাড়া এটিএম লুঙ্গি হিসেবে যতটা ভালো তারচেয়ে এটিএম বুথ হিসেবে বেশি ভালো।
কেন? অভিনেতা হিসেবেও ভালো। এটিএম শামসুজ্জামান। হা হা হা।
ভাই, আপনি একটু সিরিয়াস হইবেন।
সিরিয়াস হয়ে লাভ কি? লুঙ্গির বিজ্ঞাপন সিরিয়াস টাইপ হলে পাবলিক সেই লুঙ্গি কিনবে না। লুঙ্গি হচ্ছে রিল্যাক্সের পোশাক। যত ঢিলা হবে তত আরাম।
এইতো লাইনে আসছেন। এই কোম্পানি মার্কেটে নতুন আসতেছে। একটা সুন্দর নাম দিতে পারলে আরও ভালো হয়।
আগে ছিলেন জিঙ্গেলে। এখন বলছেন নামও লাগবে।
দ্যান না ভাই। জ্ঞান আর আইডিয়া দিলে কমে না।
লুঙ্গির একটা সুন্দর নাম অবশ্য মাথায় আসছে।
আসছে? দাঁড়ান, দাঁড়ান। কলমটা কই গেলো . . .বলেন . . .
‘দখিন হাওয়া’।
‘দখিন হাওয়া’!
উঁচু গলার নির্মাতার স্বর নেমে যায়।
লুঙ্গির নাম ‘দখিন হাওয়া’। কি কন!
নির্মাতার গলা এবার আরও চিকন।
কেন? সমস্যা কি?
এইটাতো ভাই সিলিং ফ্যান না। মানুষ লুঙ্গি কিনবে, বাতাস না।
আরে ভাই, লুঙ্গির সাথে বাতাসের একটা সম্পর্ক আছে। আমরা প্যান্ট খুলে লুঙ্গি কেন পড়ি? একটু হাওয়া-বাতাসের জন্য। তাইতো?
তা ঠিক আছে। কিন্তু . . .
শোনেন, আমার বুদ্ধি নেন। কাজে লাগবে। লুঙ্গির নাম দেন ‘দখিন হাওয়া’। সাথে শ্লোগান হবে- ‘যেনো দখিন খোলা বারান্দা’।
লুঙ্গির নামের মধ্যে হাওয়া-বারান্দা। বুঝলাম না ভাই।
না বোঝার কিছু নেই। লুঙ্গির একদিক খোলা থাকে। ওটাই হচ্ছে দখিন খোলা বারান্দা। শুধু বাতাস আর বাতাস।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here