ওজন কমান খুব সহজেই

0
69

169161নতুন বছরে কি কিছুটা ওজন কমাতে চান? তাহলে ভাজিতে তেলের বদলে পানি ব্যবহার বা ডুবো তেলে ভাজার চেয়ে ওভেনে ভাজা কিংবা চা-কফিতে ফ্যাট ফ্রি দুধের ব্যবহারের মতো কিছু টিপস পাবেন এখানে, যা সহজেই কাঙ্খিত ফিগার এনে দেবে।

মিনারেল ওয়াটার ট্রিকস

নন স্টিক কড়াইয়ে সামান্য মিনারেল ওয়াটার দিয়ে ডিম ভেঙে ছেড়ে দিন, দেখবেন তেল ছাড়াই কী সুন্দর ডিম পোচ হয়ে যাবে৷ আর খেতেও লাগবে দারুণ!

ডুবো তেলের বদলে ওভেন

যে খাবারগুলো সাধারণত ডুবো তেলে ভাজা হয়, সেগুলো কিন্তু খুব সহজেই সামান্য তেল ব্যবহারে করে ওভেনেও ভাজি করা সম্ভব৷ একবার করেই দেখুন না !

ভাজির চেয়ে সেদ্ধ ভালো

তেলের পরিবর্তে খানিকটা পানিতে মাছ, মাংস বা সবজি সেদ্ধ করে নিন৷ তাছাড়া মাটির হাড়িতেও তেল কম খরচ হয়৷ অর্থাৎ ওজন কমানোর জন্য যে কোনো চর্বি বা তেলের ব্যবহার কীভাবে কম করা যায়, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

বিস্কুটের গুড়ো নয়!

কাবাব, মাছের চপ বা আলুর চপ তৈরি করতে বিস্কুটের গুড়ো নয়! কেন? কারণ বিস্তুটের গুড়ো লাগিয়ে ভাজি করলে অনেক তেল লাগে৷ তাই বিস্কুটের গুড়োর বদলে ডিম, মসলা, ধনে বা পুদিনা পাতা বাটা দিলেও স্বাদ খারাপ হবে না।

নন স্টিক কড়াই

নন স্টিক কড়াইয়ে তেল কম লাগে৷ তাই নন স্টিক কড়াইয়ে কম তেলে মাছ বা মাংস ভাজতে পারেন৷ এতে খাবারের স্বাদ যেমন ভালো হবে, তেমনি তেল খাওয়া হবে অনেক কম৷ বাড়তি তেল যে মোটা করে – সেটা নিশ্চয় আর বলে দিতে হবে না!

ফ্যাট কমাতে যা করবেন

স্যুপ বা ফ্যাটযুক্ত মাংস থেকে ফ্যাট কমাতে, সেটা রান্নার পর ঠান্ডা হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন৷ দেখবেন হাড়ির চারদিকে ফ্যাট জমে গেছে৷ তখন তা আস্তে আস্তে চামচ দিয়ে তুলে ফেলুন।

গরুর পরিবর্তে মুরগির কাবাব

কাবাব বলতেই সাধারণত আমরা গরু বা খাসির মাংসের কাবাবের কথা বুঝি৷ গরু বা খাসির পরিবর্তে মুরগির বুকের মাংসের কাবাব খেতে কিন্তু বেশ ভালো! সুস্বাস্থ্যের জন্য গরুর চেয়ে যে মুরগি উপকারী, সেকথা বোধ হয় আজ আর কাউকে বলার প্রয়োজন নেই।

ক্রিমের বদলে দই

মিষ্টি খাবার তৈরিতে অনেকেই ক্রিম ব্যবহার করে থাকেন, যাতে থাকে প্রচুর ক্যালোরি৷ তাই ক্রিমের জায়গায় সাদা দই ব্যবহার করে খেলে পেটে যেমন হালকা বোধ হয়, তেমনি শরীরেরও ফ্যাট জমে কম।

কনডেন্স মিল্ক নয় কিন্তু!

কনডেন্স মিল্ক বা ঘন করা মিষ্টি দুধে চা বা কফি পান করতে পছন্দ করেন আমাদের অঞ্চলের মানুষরা৷ এতে দিনে দুই বা তিন কাপেই অনেকটা ক্যালোরি গ্রহণ করা হয়ে যায়৷ তাই কনডেন্স মিল্কের পরিবর্তে সাধারণ দুধ নিন এবং চিনির পরিমাণ কিছুটা কমিয়ে দিন৷ এতে কিন্তু ওজন কমাতে আপনার সুবিধাই হবে।

ক্রিমের বদলে আলুর পাউডার

অনেকেই মিষ্টি জাতীয় খাবারের ঝোল ঘন করে স্বাদ বাড়াতে ক্রিম ব্যবহার করেন৷ মজার কথা, ক্রিমের ক্যালোরি এড়াতে কিন্তু আলুর গুড়ো ব্যবহার করা যায়৷ জার্মানিতে অবশ্য আলুর পাউডার কিনতে পাওয়া যায়৷ এতে খাবারের মিষ্টিভাবও কিছুটা কমে বৈকি!

মাংসের বদলে ডাল

সমোসা বা মাংসের পিঠা তৈরি করতে শুধু মাংস না নিয়ে অর্ধেক মাংস আর অর্ধেক ডাল ব্যবহার করা যায়৷ এমনটা করলে তা খাবারে খানিকটা অন্য স্বাদ এনে দেয় এবং এই সুযোগে মাংসকেও কিছুটা এড়িয়ে যাওয়া যায়।

মাখনের পরিবর্তে দই

কেক বানাতে যেখানে ২৫০ গ্রাম মাখনের প্রয়োজন, সেখানে অর্ধেক মাখন আর বাকি অর্ধেক সাদা দই মিশিয়ে নিন৷ খেতে মোটেও খারাপ লাগবে না! যাঁরা মাঝে মাঝেই কেক খেতে ভালোবাসেন, তাঁরা একটু ভেবে দেখুন তো এই নিয়ম মানলে কতটা কম ফ্যাট খাওয়া হলো!

মাখন

সকালের নাস্তায় রুটিতে মাখন লাগানোর মাখনটা একটু আগে থেকেই ফ্রিজ থেকে বের করে রেখে দিন৷ শক্ত মাখন রুটিতে বেশি লাগাতে হয় আর গলা মাখন কম লাগালেও কাজ চলে যায়।

সালাদ ড্রেসিং

সালাদকে সুস্বাদু করার জন্য বাজারের কেনা ড্রেসিং ব্যবহার না করে ঘরেই তৈরি করে নিন৷ সাদা দই, লেবু , অলিভ অয়েল, ধনে পাতা, পুদিনা পাতার মতো বিভিন্ন পাতা মিশিয়ে এই ড্রেসিং তৈরি করতে পারেন৷ আর কেনা ড্রেসিং হলে আগে থেকে সালাদে না মিশিয়ে প্রয়োজনে খাবার সময় মেশান৷ কেনা ড্রেসিং-এ যে প্রচুর ক্যালোরি থাকে!

সামান্য সতর্কতা

ওজন কমানোর জন্য বাঙালিদের খাওয়া বাদ? না, খাওয়া বাদ না দিয়ে একটু সতর্ক হলেই কিন্তু ওজন কমানো সম্ভব৷ শুধু নজর রাখতে হবে বেশি চর্বি, মিষ্টি না খাওয়া আর খাবারের পরিমাণ কিছুটা কমিয়ে তৈরি খাবার এড়িয়ে চলা৷ এছাড়া বেশি রাতে না খাওয়া এবং পাশাপাশি যথেষ্ট হাঁটা-চলা করা, ব্যাস! এতেই যে কেউ থাকবেন সুস্থ আর পাবেন মনেরমতো ফিগার। সূত্র: ডয়চে ভেলে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here