এবার ভ্রমণ হোক রাশিয়ায় (পর্ব-২)

0
81
trans_sibirya_ekspresi_turlari_rusya_mogolistan_cin_181_1523_0003রাশিয়া একটি বিশাল দেশ, ভ্রমণের জন্য বেশ চমৎকার দেশটি। গ্লাসিয়ার কেপড পর্বতে ট্রাকিং থেকে শুরু করে বিশ্বের সবচেয়ে পুরাতন লেকের তীরে ভ্রমণ পর্যন্ত রাশিয়া পর্যটকদের কাছে রোমাঞ্চের আরেক নাম। এরই সাথে ঐতিহাসিক এবং সাংস্কৃতিক বিভিন্ন নিদর্শন তো রয়েছেই। মস্কোর ক্রেমলিন হোক আর হোক মঙ্গোলিয়ায় ঘুরে বেড়ানো একবার রাশিয়া ভ্রমণ মনে থাকবে আজীবন। আসুন জেনে নিই, রাশিয়ার মূল আকর্ষণগুলো। আজ দ্বিতীয় পর্ব-
ট্রান্স সাইবেরিয়ান রেলওয়ে
এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় রেল যোগাযোগ ব্যবস্থার অংশ। ক্লাসিক ট্রান্স সাইবেরিয়ান রেলওয়েটি মস্কো থেকে ভ্লাদিভস্টোক পর্যন্ত চলে গেছে। ভ্লাদিভস্টোক রাশিয়ার সাথে চীন এবং উত্তর কোরিয়ার বর্ডারের কাছের একটি শহর। রেলপথটির নির্মাণ শুরু হয় ১৮৯১ সালে। নির্মাণ কাজ শুরু করেন রূশ সম্রাট তৃতীয় আলেক্সান্ডার এবং শেষ করেন তার পূত্র সম্রাট দ্বিতীয় নিকোলাস ১৯১৬ সালে। পথটিকে বলা হয় ‘the route of the tsars’। বেশীরভাগ ভ্রমণকারীরাই এক স্থান থেকে অন্য স্থানে ভ্রমণের জন্য এই পথের রাতের ভ্রমণ বেছে নেন। রাশিয়ায় ভ্রমণে যে কোন পর্যটক একবার হলেও এই রেলপথ ভ্রমণ করেন।
মাউন্ট এলব্রুস
দক্ষিণ রাশিয়ার ককেশাস পর্বতমালার অন্তর্গত মাউন্ট এলব্রুস। এর উচ্চতা ৫,৬৪২ মিটার বা ১৮ হাজার ৫১০ ফুট। এলব্রুস আমাদের গ্রহের সাত মহাদেশের ৭ সামিটের একটি। রোমাঞ্চপ্রিয় ভ্রমণকারী যারা ট্রাকিং করতে ভালবাসেন তাদের বাকেট লিস্টে অবশ্যই রয়েছে এই পর্বতটি। এই পর্বতে আরোহণ করতে যথেষ্ট অভিজ্ঞতার প্রয়োজন রয়েছে। তবে কেবল কার সিস্টেম আপনাকে ৩,৮০০ মিটার পর্যন্ত উপরে নিয়ে যাবে। আগ্নেউগিরির অগ্নুৎপাত থেকে এই পর্বতের সৃষ্টি। বরফাচ্ছাদিত পর্বত আর সেই পর্বতে সূর্যের আলোর খেলা, রাতের আকাশ এক অনন্য রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতার ভান্ডার এই মাউন্ট এলব্রুস।
ভ্যালী অব গেসিয়ার্স
সুদূর পূর্ব রাশিয়ার কামচাতকা পেনিনসুলায় অবস্থান ভ্যালী অব গেসিয়ার্স এর। এটি বিশ্বের ২য় বৃহৎ গেসিয়ার্স ভূমি। আবিষ্কৃত হয় ১৯৪১ সালে। আবিষ্কার করেন স্থানীয় একজন বিজ্ঞানী, যার নাম তাতিয়ানা উস্তিনোভা। তখন থেকেই ভূমিটি পর্যটকের পছন্দের স্থান। কামাচাতকা ভ্রমণের মূল উদ্দেশ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে ভ্যালী অব গেসিয়ার্স।
কিঝি আইল্যান্ড
অবস্থান কারেলিয়া অঞ্চলে, রাশিয়ার উত্তর-পশ্চিমে যা কিনা ফিনল্যান্ড এবং হোয়াইট সি এর মাঝে বর্ডার। কিঝি আইল্যান্ড এর অসাধারণ খোলামেলা যাদুঘরের জন্য বিশেষভাবে খ্যাত। কারেলিয়ানরা এখানে বাস করে সেই ১৩ শতক থেকে। পূর্ব আর পশ্চিমের সংস্কৃতির মাঝে তফাৎ তৈরি করে করেছে এই জাতি। যাদুঘরের আওতায় আছে একটি ১২০ ফুট উঁচু একটি চার্চ, এটিকে বিখ্যাত করেছে এর অনন্য গঠনশৈলী। চার্চটির আছে ২২ টি গম্বুজ। কাঠের বাড়ি, উইন্ড মিল, চাপেলস এবং বার্ন্স হল অন্যান্য পর্যটক আকর্ষণ। এখানকার কৃষি সংস্কৃতির ফল হিসেবে বিভিন্ন লোকজ শিল্পের সাথে পরিচয় হবে আপনার।
 
সোফিয়া ক্যাথেড্রাল, নভগরদ
এর অবস্থান রাশিয়ার সবচেয়ে পুরাতন শহর নভগরদে। এর উচ্চতা ১২৫ ফুট এবং ৫টি চমৎকার গম্বুজে এটি সজ্জিত। গির্জাটি রাশিয়ার সবচেয়ে প্রাচীন চার্চ বিল্ডিং। সেন্ট সোফিয়া ক্যাথেড্রালের অনন্য বৈশীষ্ঠ্য হল প্রাচীন ধর্মীয় হস্তনির্মিত একটি অ্যারে, ঈশ্বরের মায়ের নিদর্শন যা একটি আইকন। কথিত আছে, এই নিদর্শনটি ১১৬৯ সালে নভগরদকে অক্রমণ থেকে বাঁচিয়েছিল। গির্জার প্রবেশদ্বার ৩টিও এর চমৎকার গঠনের জন্য বিখ্যাত। দ্বারগুলো নির্মিত হয় ১২ শতকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here