জঙ্গি অর্থায়ন: সিঙ্গাপুরে ৪ বাংলাদেশির কারাদণ্ড

0
261

bangla12সিঙ্গাপুরে জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত চার প্রবাসী বাংলাদেশির ২৪ থেকে ৬০ মাসের কারাদণ্ড হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সিঙ্গাপুরের দৈনিক স্ট্রেইটস টাইমস এই তথ্য জানিয়েছে।

দণ্ড পাওয়া ব্যক্তিরা হলেন মিজানুর রহমান (৩১), রুবেল মিয়া (২৬), মো. জাবাথ কায়সার হাজি নুরুল ইসলাম সওদাগর (৩১) ও সোহেল হাওলাদার ইসমাইল হাওলাদার (২৯)। চারজনই আদালতে দোষ স্বীকার করেছেন।

গত মাসে সিঙ্গাপুরের টেররিজম (সাপ্রেসিং অব ফাইন্যান্সিং) অ্যাক্টের অধীনে ছয় বাংলাদেশিকে আটক করা হয়। এই চারজন ওই দলেরই অংশ। সিঙ্গাপুরে এই আইনে এবারই প্রথম কোনো মামলা দায়ের করা হলো। অভিযুক্ত বাকি দুজন জামান দৌলত (৩৪) ও মামুন লিয়াকত আলী (২৯) তাঁদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

সিঙ্গাপুরের স্ট্রেইটস টাইমস বলছে, আদালতের নথি পর্যালোচনায় দেখা গেছে, জঙ্গিবাদী কার্যক্রম পরিচালনায় অভিযুক্ত ব্যক্তিদের সুনির্দিষ্ট ভূমিকা ছিল। দলটির অধিনায়ক ছিলেন মিজানুর রহমান। দলে মামুন লিয়াকত আলীর অবস্থান ছিল দ্বিতীয়। রুবেল মিয়া আর্থিক ব্যবস্থাপনা দেখতেন এবং জাবাথ যোগাযোগ রক্ষার কাজ করতেন। জামান ও সোহেল দলের নিরাপত্তা ও যোদ্ধা অংশটির তত্ত্বাবধান করতেন। রুবেল মিয়া ও জাবাথের কাছে জঙ্গিবাদী কার্যক্রমে অর্থায়নের জন্য তহবিল রাখারও অভিযোগ আছে।

আদালতে উত্থাপিত নথিপত্রে বলা হয়েছে, দলটির প্রধান মিজানুর রহমান গত বছরের এপ্রিলে বাংলাদেশে জাহাঙ্গীর আলম নামে এক ব্যক্তির সংস্পর্শে আসেন। তিনিই তাঁকে জঙ্গি কার্যক্রমে উদ্বুদ্ধ করেন। মিজানুর পরে রুবেল মিয়া, জামান ও সোহাগ ইব্রাহীম নামের তিন বাংলাদেশিকে দলে ভেড়ান। সোহাগ ইব্রাহীম অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার আছেন। দলটি ফেব্রুয়ারি ও মার্চে নিয়মিত বৈঠকে বসে এবং সাংগঠনিক কাঠামো দাঁড় করায়।

নথিপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, দলের সদস্যরা বাংলাদেশে ফিরে ‘অবিশ্বাসীদের’ বিরুদ্ধে সশস্ত্র জিহাদ শুরুর ব্যাপারেও আলোচনা করতেন। তাঁরা বলেন, প্রচার অভিযান, খাবার, আগ্নেয়াস্ত্র ও ছুরি কেনার জন্য তাঁদের টাকার প্রয়োজন ছিল। তাঁরা তাঁদের বেতনের একটা অংশ এ কাজে দান করতেন।

গত মার্চ ও এপ্রিলে সিঙ্গাপুরের বিভিন্ন জায়গা থেকে জঙ্গি কর্মকাণ্ডের পরিকল্পনার দায়ে আটজনকে গ্রেপ্তার করে স্থানীয় পুলিশ। এঁদেরই ছয়জন বিচারাধীন।

আদালতের নথিতে বলা হয়েছে, গ্রেপ্তারের সময় জাবাথের কাছে ১ হাজার ৩৬০ ডলার পাওয়া গিয়েছিল, এর মধ্যে ১ হাজার ৬০ ডলার তাঁকে দেন রুবেল মিয়া। এই ছয়জন ৬০ ডলার থেকে ৫০০ ডলার পর্যন্ত চাঁদা দিয়েছেন তহবিল গঠনের জন্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here