রাজনৈতিক আশ্রয় প্রত্যাখাতরা সাফাদি-জয় কাহিনী ফেঁদেছিলো

mqdefaultবর্ণমালা নিউজ : অস্বাভাবিক হারে বাংলাদেশ থেকে মিডিয়া কর্মীদের আমেরিকায় এসে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রত্যাখাত হবার পর দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র মূলক কল্প কাহিনী ফেঁদে রিপোটিং করে তার থেকে ফায়দা লুটার কাহিনী বের হয়ে এসেছে। দেশে প্রতিষ্ঠিত টেলিভিশনের রিপোর্টার এবং যুদ্ধাপরাধীদের বন্ধ হয়ে যাওয়া মিডিয়ার কর্মীরা রয়েছেন এই তালিকায়। এদের মধ্যে কারও কারও বিরুদ্ধে মিডিয়া কর্মীর ছদ্মবেশে মানব পাচারেরও অভিযোগ রয়েছে এবং সেই অভিযোগে বাংলাদেশের একটি টেলিভিশনের সাংবাদিকদের ৩/৪ বছরের আমেরিকান দূতাবাস নিষিদ্ধ করেছিলো। আবার জামাতপন্থী মিডিয়াকর্মীরা সাংবাদিক হিসাবে সুবিধা করতে না পেরে ধর্মীয় ক্যাটাগরি ও মানবাধিকার কর্মী হিসাবে আশ্রয় প্রার্থনা করার জন্য মসজিদ কে্িন্দ্রক ও ইসলামী অনুষ্ঠানমালা কিংবা স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কাজ করে আমেরিকায় থাকার বাহানা বানিয়ে নিচ্ছেন।
নিউইয়র্কভিত্তিক সংবাদ সংস্থা এনআরবি নিউজ তাদের এক প্রতিবেদনে দেশ থেকে আসা সাংবাদিকদের রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনার পেছনে দেশবিরোধী কর্মকান্ডের এই তথ্য তুলে ধরেছে। সংবাদ সংস্থাটি দাবী করেছে, ‘অতি সম্প্রতি ইসরাইলি গোয়েন্দা সংস্থার সদস্য মেন্দি সাফাদির সাথে সজীব ওয়াজেদ জয়ের বৈঠকের অবান্তর যে সংবাদ রটনা করা হয়, তার নেপথ্যেও সাংবাদিকসহ ৩ বাংলাদেশীর এসাইলাম আবেদনের প্রক্রিয়া কাজ করেছে। বানোয়াট ঐ সংবাদ রটনার পর বাংলাদেশে সৃষ্ট প্রতিক্রিয়াকে ঐ ৩ বাংলাদেশী তাদের এসাইলাম প্রার্থনার ভিত্তি হিসেবে দাঁড় করাতে চাচ্ছেন।’ সূত্রটি জানায়, এদের আবেদন ইতিপূর্বে নাকচ হয়ে যাওয়ায় তারা পুনরায় গ্রাউন্ড তৈরীর জন্যে মরিয়া হয়ে উঠেছেন যে, বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিলে তাদেরকে ভয়ংকর পরিস্থিতির ভিকটিম হতে হবে। অথচ এই সাংবাদিকদের কেউ কেউ আবার ঢাকার আওয়ামীপন্থী শীর্ষ সাংবাদিক নেতাদের ¯েœহভাজন এবং তাদেরকে বিশেষ সার্ভিস (!) প্রদানকারী হিসাবে পরিচিত। আর এরাই আমেরিকায় এসে খোলস খুলে জামাতপন্থী ও কট্টর আওয়ামী বিরোধী মিডিয়াগুলোতে স্বচ্ছন্দে কাজ করছেন। আবার দেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের বিভিন্ন টেলিভিশন ও দৈনিকের প্রতিনিধি হিসাবেও কাজ করে বেতন পাচ্ছেন।
এছাড়া বহুদিন ধরে আমেরিকায় বসবাস করে বারবার নাম পাল্টে এবং শেষ পর্যন্ত ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করে খ্রীস্টান ধর্ম গ্রহণ করে রাজনৈতিক আশ্রয় নেবার চেষ্ঠা করেও ব্যর্থ দুয়েকজন রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী (!) -ও এই সাফাদি-জয় কাহিনীর নেপথ্যে কাজ করেছেন বলে জানা গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here