নিউইয়র্কে মীর কাসেম আলীর গায়েবানা জানাজা ও প্রতিবাদ সভায় বদলা নেবার প্রতিজ্ঞা

0
276

বর্ণমালা ডেস্ক : নিউইয়র্কে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য মীর কাসেম আলীর গায়েবানা জানাজা নামাজ ও প্রতিবাদ সভায় বদলা নেবার প্রতিজ্ঞা করেছেন জামাতে ইসলামীর অনুসারী বিভন্নি সংগঠনের নেতারা।
বাংলা1472982476_7দেশী অধ্যুষিত ব্রুকলীনের চার্চ-ম্যাকডোনাল্ড এভিনিতে অনুষ্ঠিত গত ৩ সেপ্টেম্বর বিকেলে গায়েবানা জানাজায় বাংলাদেশী-আমেরিকান ছাড়াও অন্যান্য কম্যুনিটির পুরুষ-মহিলার অংশগ্রহণ করেন। নামাজের ইমামতি করেন মজলিসে শুরা অব নিউইয়র্করে সভাপতি শায়খ আব্দুল হাফিদ।
জানাজা পূর্ব সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, ‘কোনো অপরাধ নয়, জাতিকে নেতৃত্বশূন্য করতেই আদর্শিক কারণেই বাংলাদেশের বিশিষ্ট শিল্প উদ্যেক্তা মীর কাসেম আলীকে শহীদ করা হয়েছে’। বাংলাদেশের সবুজ ভু-খ-ে কোরআনের সমাজ বিনির্মাণের মধ্য দিয়ে শহীদ মীর কাসেম আলীকে হত্যার বদলা নেয়া হবে। বক্তারা মীর কাসেম আলীকে শহীদ উপাধি দিয়ে বলেন, শহীদ মীর কাসেম আলী তার অবদানের জন্য দেশ ও প্রবাসে জনগণের হৃদয়ে চিরদিন স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তারা আরো বলেন, আজকে শহীদ মীর কাসেম আলীর গায়েবানা নামাজে জানাযায় শতশত লোক শরীক হওয়া-প্রমাণ করে যে, তিনি একজন নির্দোষ মানুষ ছিলেন। কথিত মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের নামে বাংলাদেশ থেকে ঈমানদার, দ্বীনদার নেতৃত্ব, ইসলাম ও ইসলামি আন্দোলনকে নির্মূল করতেই একের পর এক জাতীয় নেতৃবৃন্দকে শহীদ করা হচ্ছে। তারা বলেন, শহীদের রক্ত কখনো বৃথা যেতে পারে না। আল্লাহর এই যমীনে তার দ্বীন কায়েমের মাধ্যমে এর প্রতিশোধ নেয়া হবে। তারা মীর কাসেম আলীকে শহীদ হিসেবে কবুল করার জন্য আল্লাহ দরবারে দোয়া প্রার্থনা করেন।
প্রতিবাদ সভাটি বাংলাদেশী আমেরিকার প্রগ্রেসিভ ফোরামের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক নূরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও সম্পাদক মাহবুবুর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন, শিক্ষাবিদ আব্দুল হাফিদ, ইয়েমেনী-আমেরিকান কম্যুনিটি নেতা মোহাম্মদ নাজি, ম্যাস নিউইয়র্ক প্রতিনিধি মোহাম্মদ, মীর কাসেম আলীর ছোট ভাই মীর মাসুম আলী, মুসলিম উম্মাহ অব নর্থ আমেরিকার সাবেক সভাপতি মাহতাবউদ্দিন আহমেদ, আব্দুল আজিজ ভূইয়া, শিক্ষক আবু সামীহা সিরাজুল ইসলাম, কম্যুনিটি নেতা আব্দুল্লাহ আল আরিফ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here