এফটিএ স্বাক্ষর করলে কমদামে বাংলাদেশ বিশ্বমানের পণ্য সরবরাহ করবে : বাণিজ্যমন্ত্রী

0
15
1754532016-11-09_6_43704ঢাকা: বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, শ্রীলংকা ফ্রি ট্রেড এগ্রিমেন্ট (এফটিএ) স্বাক্ষর করলে বাংলাদেশ তৈরী পোশাক, ঔষধ, সিমেন্ট, পেপারসহ বিভিন্ন পণ্য কমদামে রপ্তানি করবে।
তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ থেকে বিশ্বমানের পণ্য আমদানি করা হলে শ্রীলংকার জন্যও লাভজনক হবে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় কম দামে বাংলাদেশ এ সকল পণ্য শ্রীলংকায় রপ্তানি করতে সক্ষম।’
বাণিজ্যমন্ত্রী আজ শ্রীলংকার কলম্বোয় হোটেল সিন্ডমোন লেকসাইডে বাংলাদেশ-শ্রীলংকা জয়েন্ট ইকনোমিক কমিশনের (জেএসি) ৫ম সভার উদ্বেধনী অনুষ্ঠানে বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। শ্রীলংকার শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী রিশাদ বাথিউদ্দিনও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।
আজ ঢাকায় প্রাপ্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।
তোফায়েল আহমেদ বলেন, বাংলাদেশ শ্রীলংকার সাথে বাণিজ্য বৃদ্ধি করতে আগ্রহী। বাণিজ্য সুবিধা বৃদ্ধির জন্য শ্রীলংকা বাংলাদেশ ফ্রি ট্রেড এগ্রিমেন্ট (এফটিএ) স্বাক্ষর হওয়া প্রয়োজন। বিশ্ববাণিজ্য সংস্থার সিদ্ধান্ত মোতাবেক উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলো এলডিসিভুক্ত দেশগুলোকে ডিউটি ও কোটা ফ্রি সুবিধা দিচ্ছে। উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে শ্রীলংকা বাংলাদেশের সাথে এফটিএ স্বাক্ষর করতেই পারে। এতে দু‘দেশের বাণিজ্য অনেক বৃদ্ধি পাবে এবং লাভবান হবে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে আগামী ২০২১ সালে রপ্তানি ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। এ জন্য ৭ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় দেশের রপ্তানি পণ্য সংখ্যা বৃদ্ধি এবং নতুন নতুন রপ্তানি বাজার সৃষ্টির জন্য সরকার বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, রপ্তানি বৃদ্ধির জন্য আইটি, ঔষধ, ফার্নিচার, জাহাজ নির্মাণ ও কৃষিজাত পণের উপর বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশ। অনেক পণ্য রপ্তানিতে নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। এরফলে বাংলাদেশের দেশের রপ্তানি বাড়ছে।
বাংলাদেশ এলডিসিভুক্ত হওয়ায় বেশির ভাগ উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশ বাংলাদেশকে ডিউটি ও কোটা ফ্রি সুবিধা প্রদান করছে। শ্রীলংকাও এ সুবিধা প্রদান করলে বাণিজ্য বাড়বে এবং উভয়দেশ উপকৃত হবে।
তোফায়েল আহমেদ শ্রীলংকার শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী রিশাদ বাথিউদ্দিন এবং অর্থমন্ত্রী রাভি কারুনানায়ক এর সঙ্গে একান্ত বৈঠক করেন।
এ সময় তিনি বাংলাদেশের সঙ্গে শ্রীলংকার এফটিএ স্বাক্ষর এবং উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্য বৃদ্ধির আহবান জানান। শ্রীলংকা বাংলাদেশের সঙ্গে এফটিএ স্বাক্ষরে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। প্রয়োজনীয় আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে শ্রীলংকা বাংলাদেশের সঙ্গে এফটিএ স্বাক্ষর করবে।
বর্তমানে বাংলাদেশের সঙ্গে শ্রীলংকার প্রায় ৭৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের বাণিজ্য হচ্ছে। গত ২০১৫-২০১৬ অর্থ বছরে বাংলাদেশ শ্রীলংকা থেকে আমদানি করেছে ৪৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যেও পণ্য এবং একই সময়ে রপ্তানি করেছে ৩০ দশমিক ৪৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য। বাংলাদেশের ঘাটতি বাণিজ্য ১৪ দশমিক ৫৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here