আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের দর্পণ-রচি কমিটির দায়িত্ব গ্রহণ আনুষ্ঠানিকভাবে ভেঙ্গে গেল আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাব

0
837

বর্ণমালা ডেস্ক : নির্বাচন নিয়ে খন্ডিত আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের আরেকটি কমিটি দায়িত্ব নিয়েছে। বিশেষ সাধারন সভায়  সাপ্তাহিক প্রবাস পত্রিকার সম্পাদক মোহাপম্মদ সাইদকে সভাপতি ও শওকত ওসমান রচিকে সম্পাদক করে প্রথমে কমিটি ঘোষণা দেবার ২৬ দিন পর সভাপতি পদ থেকে সাইদের পদত্যাগের পর বিদায়ী সাধারন সম্পাদক দর্পন কবিরকে সভাপতি করে নতুন কমিটি গঠিত হল। ১৯ মার্চ দর্পন কবির ও শওকত ওসমান রচির কমিটির কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করেছে বিদায়ী কমিটি। এসময়ে বিদায়ী কমিটির সাধারণ সম্পাদক দর্পণ কবীর রেজুলেশন বুক নতুন কমিটির সাধারণ সম্পাদক শওকত ওসমান রচির হাতে তুলে দেন। দায়িত্ব হস্তান্তর পর্বে তাদের পাশে বিদায়ী কমিটির সভাপতি নাজমুল আহসান ও আজকাল পত্রিকার প্রধান সম্পাদক জাকারিয়া মাসুদ জিকোসহ ক্লাব কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে সাপ্তাহিক ঠিকানার সম্পাদক লাভলু আনসারকে সভাপতি এবং দৈনিক ইত্তেফাকের বিশেষ প্রতিনিধি শহিদুল ইসলামকে সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত ঘোষণা করে ক্লাবের নির্বাচন কমিশন। এখন একই নামের প্রেসক্লাবটিতে দুটি কমিটি দায়িত্ব নেয়ায় এটা ষ্পষ্ট হয়ে গেল যে ‘আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাব’ আনুষ্ঠানিকভাবে ভেঙ্গে গেল।

নিউইয়র্কে বাংলাদেশী সাংবাদিকদের দুটি প্রেসক্লাব এতোদিন কার্যক্রম চালিয়ে আসছিলো। ২০০৮ সালে প্রয়াত প্রখ্যাত সাংবাদিক ফাজলে রশিদের অনুপ্রেরণায় নিউইয়র্ক-বাংলাদেশ প্রেসক্লাব গঠনের পর পরই সাপ্তাহিক ঠিকানার সিইও সাইদুর রব ও সাপ্তাহিক পরিচয় সম্পাদক নাজমুল আহসানের প্রচেষ্ঠায় দ্বিতীয় প্রেসক্লাবটি ’আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাব’ নামে সে বছরই কার্যক্রম শুরু করে। প্রতিষ্টার পর এবছরই প্রথম নির্বাচনের মাধ্যমে কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণের পর পরই অভ্যন্তরীণ কোন্দলে জড়িয়ে পড়েন ক্লাবটির কার্যকরী কমিটির কর্মকর্তারা। যার জেরে এক অংশ নির্বাচন বর্জন করে। নির্বাচন বর্জন নাটকের পর্বের আগে বিদায়ী সভাপতি নাজমুল আহসান বিদায়ী সহ সম্পাদক শহিদুল ইসলামের সাথে ঘনিষ্ঠ ছিলেন, কিন্তু নির্বাচনী মেরুকরণ শুরু হলে নাজমুল আহসান বিদায়ী সাধারন সম্পাদক দর্পন কবিরের সাথে ঘনিষ্ঠতা বজায় রাখা শুরু করেন। এবং শেষ পর্যন্ত তিনি দর্পন কবিরের কাছে দায়িত্ব হস্ত্ন্তর করেন। অন্য দিকে কার্যকরী কমিটির সংখ্যাগরিষ্ট ৫জন সদস্যের সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে অন্য অংশটি নির্বান কমিশনের ঘোষিত নতুন তারিখ ১১ মার্চ নির্বাচন করার লক্ষ্যে নমিনেশন জমা দেয় কমিশনে। একটি প্যানেল এবং কোন পদে দ্বিতীয় প্রার্থী না থাকায় কাজী শামসুল হকের নির্বচন কমিশন লাভলু-শহীদিুল কমিটিকে বিনা প্রতিদ্বন্বিদ্বতায় নির্বাচিত ঘোষনা করে।

গত ১৯ মার্চ বিকেলে জ্যাকসন হাইটসের খাবার বাড়ি রেষ্টুরেন্টে আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সাধারণ সভায় নতুন কমিটির সভাপতি পদে দর্পণ কবীরকে সাধারণ সভ্যদের কণ্ঠভোটে নির্বাচিত হন। এর আগে ২৬ ফেব্রুয়ারি ক্লাবের জরুরী সাধারণ সভায় সভাপতি পদে প্রবাস পত্রিকার সম্পাদক মোহাম্মদ সাঈদকে নির্বাচিত করা হয়েছিল। সাধারণ সভায় মোহাম্মদ সাঈদ ব্যক্তিগত অসুবিধার কারণে সভাপতি পদে থাকতে না পারার অপরাগতা প্রকাশ করেন এবং একই সঙ্গে ক্লাবের নতুন গঠিত কমিটির সহ-সভাপতি (বিদায়ী কমিটির সাধারণ সম্পাদক) দর্পণ কবীরের নাম সভাপতি পদে প্রস্তাব করেন। এ সময় উপস্থিত সদস্যদের কণ্ঠভোটে দর্পণ কবীর সভাপতি নির্বাচিত হন। এই কমিটিতে নির্বাহী সদস্য হিসাবে কণ্ঠভোটে নির্বাচিত হন মোহাম্মদ সাঈদ।  ৯ সদস্য বিশিষ্ট এই কমিটির মেয়াদ বহাল থাকবে ২০১৮ সাল পর্যন্ত। ১৯ মার্চ ক্লাবের সাধারণ সভায় সভাপতিত্ব করেন ক্লাবের বিদায়ী কমিটির সভাপতি নাজমুল আহসান এবং সভা পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক দর্পণ কবীর।

সভায় বিদায়ী কমিটির সাধারণ সম্পাদক দর্পণ কবীর বিগত দিনের কার্যক্রম তুলে ধরেন এবং উপস্থিত সদস্যদের জানান-কতিপয় সদস্য ক্লাব বিরোধী কর্মকান্ডে লিপ্ত রয়েছে। তার এই বক্তব্যের পর সাধারণ সদস্যরা ঐ সকল সদস্যদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান। এ ছাড়া গঠনতন্ত্রের কিছু ধারা-উপধারা পরিবর্ধন-সংশোধন করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সভায় আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে আজকাল-এর প্রধান সম্পাদক জাকারিয়া মাসুদ, প্রবাস পত্রিকার সম্পাদক মোহাম্মদ সাঈদ ও উপদেষ্টা সম্পাদক সৈয়দ উয়ালী-উল আলম।

জাকারিয়া মাসুদ জিকো বলেন-নির্বাচন কমিশনের স্বেচ্ছাচারী কর্মকান্ডের কারণে এই প্রেসক্লাবের বিভক্তির সৃষ্টি হয়েছে। আমরা আগামী দিনে সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ করার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাব।

মোহাম্মদ সাঈদ বলেন-যারা আমাকে সভাপতি হিসাবে নির্বাচিত করেছিলেন, তাদের প্রতি আমার গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। ব্যক্তিগত নানা অসুবিধার কারণে আমি এই পদে থাকতে পারছি না। যে কোন সমস্যা মোকাবেলায় ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক দর্পণ কবীর লড়াকু ভূমিকা পালন করে আসছেন। ক্লাবের মধ্যে সংকট তৈরি হয়েছে। এই সংকট মোকাবেলায় দর্পণ কবীরের নেতৃত্বে বর্তমান কমিটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবেন বলে আমি বিশ্বাস করি। এদিকে একটি সূত্র বলেছে মোহাম্মদ সাইদ তার মায়ের পরামর্শেই বিভক্ত প্রেসক্লাবের িএকটি অংশের সভাপতি হতে চাননি। তািই সভাপতি হিসাবে তার নাম ঘোষণার পর তিনি চেষ্ঠা করেছিলেন ক্লাবকে ঐক্যবদ্ধ করতে। তার সে প্রচেষ্ঠা হালে পানি না  পাওয়ায় তিনি মায়ের অভিপ্রায়কে মূল্য দিয়ে সভাপতির পদ ছেড়ে দিয়েছেন।

সৈয়দ ওয়ালী উল আলম বলেন-আমি আশা করি, নতুন কমিটি ক্লাবকে গতিশীল নেতৃত্ব দেবে। তাদের কর্ম দক্ষতায় ক্লাবের মর্যাদা আরো বৃদ্ধি পাবে।

সভাপতির ভাষণে নাজমুল আহসান বলেন-আমি সব সময় ক্লাবের গঠনতন্ত্র মেনে চলার চেষ্টা করেছি। অন্যায় কোন সিদ্ধান্ত আমি নিইনি। যারা অন্যায় কাজ করতে চেয়েছেন, বাধা দিয়েছি। ক্ষমতার লোভী যারা, তারাই ক্লাবের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে ষড়যন্ত্র করেছে। তবে আমরা সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে অবিচল আছি।

সাধারণ সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন সহ-সম্পাদক মনজুরুল হক (টিবিএন-২৪ টিভি). কোষাধ্যক্ষ মশিউর রহমান মজুমদার (সাপ্তাহিক বর্ণমালা) এবং নির্বাহী সদস্য এবিএম সিদ্দিক (আজকাল), মিলা হোসেন (আজকাল), শিহাব উদ্দিন সাগর (প্রথম আলো), সামসুন্নাহার নিম্মি (প্রথম আলো), শামসুল আলম লিটন (আজকাল), এস.এম. সারোয়ার (প্রবাস), তোফাজ্জল লিটন (রাইজিং বিডি নিউজ), স্যামুয়েল স্টিফেন পিনারু (প্রবাস), আলামগীর হোসেন (বাংলা পত্রিকা), পাপিয়া বেগম (প্রবাস), অভিজিৎ রায় কাব্য (প্রবাস), মল্লিকা খান মুনা (অন নিউজ-২৪) প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here