নিউইয়র্কে মতবিনিময় সভায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, জনগণ আবারো হাসিনাকে ক্ষমতায় দেখতে চায়

0
66

নিউইয়র্ক: ২০১৮ সালের ডিসেম্বরেই জাতীয় সংসদ নির্বাচন, সেই নির্বাচনে বাংলাদেশের জনগণ আবারো জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা এবং উন্নয়নের অগ্রদূত শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় দেখতে চায়। যুক্তরাষ্ট্র সফররত অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত এক মত বিনিময় সভায় এ কথা বলেন। তিনি আরো বলেছেন, ইতিমধ্যে নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে। অতীত কর্মকা- বিবেচনা করে আগামী নির্বাচনে জনগণ আওয়ামী লীগকেই বিজয়ী করবে আশাবাদ ব্যক্ত করে অর্থমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনমঙ্গল ছাড়া দ্বিতীয় কোনো বিষয় নিয়ে চিন্তা করেন না। তাই বাংলাদেশের জনগণ বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকেই আবার ক্ষমতায় দেখতে চায়। গত ২৪ এপ্রিল (নিউইয়র্ক সময়) সোমবার রাতে নিউইয়র্কের উডসাইডের গুলশান টেরেসে এক মতবিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত।

আমেরিকান-বাংলাদেশি বিজনেস অ্যালায়েন্স-(এবিবিএ) এই মতবিনিময় অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, আগামী নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ের ওপর গুরুত্ব দেবে আওয়ামী লীগ। প্রার্থীদের অতীত কর্ম বিচার করে তাদের মনোনয়ন দেওয়া হবে। যারা মানুষকে কষ্ট দিয়েছেন এবার তাদের বিচার হবে অন্যভাবে। অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন অব্যাহত রাখার স্বার্থেই আওয়ামী লীগকে আবারও জয়ী হতে হবে। আমাদের যে রেকর্ড রয়েছে, তা বিবেচনা করলে আওয়ামী লীগই আবার নির্বাচিত হবে বলে আশা করছি। ফলে বর্তমান উন্নয়ন কর্মকা- নিরবচ্ছিন্নভাবে আমরা করে যেতে পারবো।

অনুষ্ঠানে প্রশ্নোত্তর পর্বে ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে বাংলাদেশের অ্যাকাউন্ট থেকে চুরি চাওয়া অর্থ ফেরত পাওয়া প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, সামান্য কিছু অর্থ ছাড়া পুরোটাই ফেরত পাচ্ছে বাংলাদেশ। ওই চুরির সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। ভবিষ্যতে এমন চুরি ঠেকাতে সকল মহল সোচ্চার রয়েছে এবং বাংলাদেশেও এ নিয়ে কাজ চলছে বলে জানান অর্থমন্ত্রী।

প্রবাসীদের নিয়ে যে আইন হয়েছে তা সংস্কার করা হতে পারে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, এ ব্যাপারে বিভিন্ন দেশে প্রবাসীরা তাদের যথেষ্ট উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। সরকারও এ ব্যাপারটিকে গুরুত্বের সঙ্গে গ্রহণ করেছে।
সম্প্রতি বন্যার পানিতে অধিকাংশ হাওড়াঞ্চল তলিয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী মুহিত বলেন, সরকার হাওড় অঞ্চলের উন্নয়নে হাওড় উন্নয়ন বোর্ড গঠন করেছে। পাশাপাশি বিভিন্ন মহাপরিকল্পনাও হাতে নিয়েছে। এরমধ্যে প্রধান পদক্ষেপ হচ্ছে মানুষের জীবন রক্ষা করা। তিনি জানান, হাওড় অঞ্চলের রাস্তাঘাট নির্মাণে সারপ্লাস পদ্ধতি গ্রহণ করেছে সরকার, যাতে বন্যার পানি নেমে গেলেও রাস্তাঘাট অক্ষত থাকে। এছাড়া স্বাস্থ্যসেবা ও শিক্ষাখাতেও অধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

এবিবিএ’র প্রেসিডেন্ট মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, আয়োজক সংগঠনের প্রধান সমন্বয়কারী মো. শাহনেওয়াজ, সদস্য সচিব বিলাল চৌধুরী, কো-কনভেনর এম এ হোসাইন সেলিম, উপদেষ্টা ডা. মাসুদুল হাসান, জেবিবিএ’র সভাপতি জাকারিয়া মাসুদ জিকো প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল শামীম আহসান, এবিবিএ’র চেয়ারম্যান সাঈদ রহমান মান্নান, সমাজকর্মী শেলী মুবদি, বাংলাদেশ স্পোর্টস কাউন্সিলের সভাপতি মহিউদ্দিন দেওয়ান, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য শাহানারা রহমান, অনুষ্ঠানের অন্যতম সমন্বয়কারী ফাহাদ সোলায়মান, আতিকুল ইসলাম জাকির প্রমুখ। অনুষ্ঠানে প্রবাসীদের পক্ষ থেকে অর্থমন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান রুবাইয়া রহমান ও সেলিনা সুলতানা।উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে অনুষ্ঠিত বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফ-এর বসন্তকালীন বৈঠকে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতা হিসেবে অংশ নেন অর্থমন্ত্রী। সেখান থেকে রবিবার নিউইয়র্কে যান অর্থমন্ত্রী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here