অবশেষে টাইগারের থাবায় ক্যাঙ্গারু বধ

0
84

স্পোর্টস ডেস্ক: এবার টেস্ট ক্রিকেটের কুলীন সদস্য অস্ট্রেলিয়াকেও মাটিতে নামিয়ে আনলো বাংলার টইগাররা। মিরপুরে আজ ২০ রানের স্নায়ুক্ষয়ী বিজয় পেয়েছে বাংলাদেশ।

লাঞ্চের পর খেলা শুরু হতেই শেষ স্বীকৃত ব্যাটসম্যান গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকেও ফিরিয়ে দিলেন সাকিব আল হাসান। এই ব্যাটসম্যানকে নিয়েই যা কিছুটা শঙ্কা ছিল লাঞ্চের সময়। এই শিকারে প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও সাকিব পেলেন ৫ উইকেট। বাংলাদেশ তাতে জয়ের দরজায় গিয়ে দাঁড়িয়েছে। মাত্র ২ উইকেট দূরে। ২৬৫ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে অসিদের স্কোরটা তখন ৮ উইকেটে ২০৬।

লাঞ্চের আগেই মিরপুর টেস্টে জয়ের সুবাস পেতে শুরু করে বাংলাদেশ। প্রথম ঘণ্টা অবশ্য হতাশারই ছিল। তারপরই রোমাঞ্চ শুরু। আর নাটকীয়তা। ওয়ার্নার-স্মিথের প্রতিরোধ ভাঙতেই হুড়মুড় করে ভেঙে পড়েছে তাদের ব্যাটিং লাইন। ২ উইকেটে ১৫৮ রান থেকে হঠাৎই অজিদের স্কোরটা ৭ উইকেটে ১৯৫ করে দেন টাইগার স্পিনাররা। সপ্তম ব্যাটসম্যান হিসেবে অ্যাগারকে (২) ফিরিয়েছেন তাইজুল। এর আগে ফিরিয়েছেন পিটার হ্যান্ডসকম্বকে। সাকিবে পরাস্থ হয়েছে ডেভিড ওয়ার্নার, স্টিভ স্মিথ ও ম্যাথু ওয়েড।

সেঞ্চুরিয়ান ডেভিড ওয়ার্নারকে লেগ বিফোর উইকেটের ফাঁদে ফেলেন সাকিব। অস্ট্রেলিয়ার রান তখন ১৫৮। এরপর স্টিভ স্মিথকেও ফেরান সাকিব (৩৭)। মুশফিকুর রহীমের হাতে ক্যাচে পরিণত হন অজি অধিনায়ক। তাইজুল ইসলামের বলে সৌম্য সরকারের হাতে ক্যাচ হয়েছেন পিটার হ্যান্ডসকম্বও (১৫)। এরপর ম্যাথু ওয়েডকে ফিরিয়েছেন সাকিব।

তবে মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে সকালেম নে হচ্ছিল এই ম্যাচ বাগে আনা কঠিন। আগের দিনে অপরাজিত ৭৫ রান নিয়ে ব্যাটিং শুরু করে বুধবার চতুর্থ দিনের সকালের শুরুতেই সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন ওয়ার্নার। ১৯তম টেস্ট সেঞ্চুরিটা পেলেন। উপমহাদেশের মাটিতে ব্যর্থতা অন্তত কিছুটা ঘুচলো তার। তবে সেটি বাংলাদেশকে পুড়িয়ে। ১৩৫ বলেই এই উইকেটে ১১২ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেছেন ওয়ার্নার। ১৬টি চার ও একটি ছক্কা মেরেছেন। আর স্মিথ ফিরেছেন ৩৭ রান করে।

অধিনায়ক ও সহ-অধিনায়কের জুটির শুরুটা আগের বিকেলে। ওয়ার্নার ৭৫ ও স্মিথ ২৫ রানে ছিলেন। সকাল থেকেই তাদের জ্বালায় অস্থির বাংলাদেশের বোলাররা। হতাশা চেপে ধরতে থাকে। কিন্তু সাকিব আছেন না! ওয়ার্নারকে বিদায় করে উৎসবে মাতিয়ে তোলেন মিরপুরকে। ১৩০ রানের তৃতীয় উইকেট জুটিটা ভাঙে। এর কিছুক্ষণের মধ্যে স্পিনে আরো বিপজ্জনক স্মিথকে শিকার করে ফেলেন সাকিবই। মিরপুর মনে করিয়ে দিয়েছে গত বছর এখানেই এক সেশনে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে সিরিজ ড্র করার সুখস্মৃতি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here