’বেটার ২ কোটি হিন্দুদের বিশেষ ব্যবস্থায় ভারতে চলে যাবার ব্যবস্থা করা উচিত’ রংপুরের ঘটনায় নিউইয়র্কে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি

0
8668
বক্তব্য রাখছেন নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক জন্মভূমি সম্পাদক রতন তালুকদার

বর্ণমালা নিউজ : বাংলাদেশে হিন্দুদের ভবিষত বলতে কিছু নেই। ভবিষতে পাকিস্তানের মত বাংলাদেশেও হিন্দুরা জনসংখ্যার ১ বা ২ শতাংশে পরিণত হবে। বেটার ২ কোটি হিন্দুদের বিশেষ ব্যবস্থায় ভারতে চলে যাবার ব্যবস্থা করা উচিত বলে করেন নিউইয়র্ক  থেকে প্রকাশিত জন্মভূমি সম্পাদক রতন তালুকদার। রংপুরে সাম্প্রদায়িক হামলা, অগ্নিসংযোগ এবং নির্যাতনের ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে গত ১২ নভেম্বররবিবর সন্ধ্যায়  ‘বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস রুখে দাঁড়াও’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তার ব্কতব্যে রতন তালুকদার আরো বলেন, আমি নিজেকে সংখ্যালঘু মনে করি না। একাত্তরে ভারতে গিয়ে আশ্রয় নিয়ে সহায়তা নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করার পর এখন কেন আমরা সংখ্যা লঘু হিসাবে চিহ্নিত হবো?

ইউনাইটেড বেঙ্গলী ফোরাম’র ব্যানারে আয়োজিত এই সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন লেখক-কলামিস্ট শিতাংশু গুহ এবং সঞ্চালনে ছিলেন সাংবাদিক তোফাজ্জল হোসেন লিটন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন প্রবীণ সাংবাদিক সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ, সাপপ্তাহিক বর্ণমালার প্রধান সম্পাদক মাহফুজুর রহমান, অধ্যাপক নবেন্দু বিকাশ দত্ত, ফাহিম রেজা নূর, স্বীকৃতি বড়ুয়া, সুব্রত বিশ্বাস,, প্রিয়দোষ দে, গোপাল সান্যাল, নূরে আলম জিকু, মুজাহিদ আনসারী, প্রভাস দাস, গোবিন্দ সরকার, দেব কুমার পাল প্রমুখ।

সভায় বিভিন্ন বক্তা বলেন, একাত্তরের পরাজিত শক্তি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করার ষড়যন্ত্র করছে। অনেক বক্তা বলেন বলেন, যেভাবে রোহিঙ্গাদের বুকে টেনে নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তেমনিভাবে কেন হিন্দুদের বুকে টেনে নেন না কেন।

নবেন্দু দত্ত বলেন, রোহিঙ্গাদের বুকে চেনে বঙ্গবন্ধু তনয়া হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী হাসিনা বলেন ‘আমার নবী (স:)-র বিরুদ্ধে কিছু বললে কাইকে ছেড়ে দেয়া হবে না। আমাদের ভরসা সরকার ও প্রশাসনের উপর কিন্তু তারা নির্বকার। প্রধান বিচারপতি সিনহার প্রতি সরকারের আচরন সঠিক ছিলো না এবং তার পদত্যাগ প্রক্রিয়া সঠিক না।

প্রিয়তোষ দে বলেন, বাংলাদেশে প্রভাবশালী হিন্দুদের চেয়ে গরীব মুসলিমদের অবস্থা অনেক খারাপ। প্রতিবাদ করার পাশাপাশি প্রবাস থেকে নিজের গ্রমে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে ভূমিকা রাখতে হবে যাতে একাত্তরের পরাজিত মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী ধারা বিস্তারে এগিয়ে যেতে পারে।

সাপ্তাহিক বর্ণমালার প্রধান সম্পাদক মাহফুজুর রহমান তার বক্তব্যে সংখ্যালঘু নির্যাতনের প্রতিবাদ এবং দেশে সংগঠিত যেকোন অন্রায় বা অত্যাচারের প্রতিবাদ করার সময় সরকার বা সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে কথা বলার েসময় যেন ‘রাষ্ট্রের’ বিরুদ্ধে অবস্তান না নেবার আহ্বান জানিয়ে বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশের অস্তিস্ব না থাকলে বাঙ্গালী হিসাবে অহঙ্কা্র করার কিছু অবশিষ্ট থাকবে না।

সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ, রংপুরের সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা দেশে বিদেশে প্রতিবাদের প্লাবন বইয়ের দেবার আহ্বান জানিয়ে বলেন, সামনে জাতীয় নিবৃাচন এবং একে লক্ষ রেখে এমন আরো ঘটনা ঘটাবে একাত্তরের পরাজিত শক্তি ও তাদের দোসররা। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কিভাবে সাহস পায় জিয়াউর রহমানকে বহুদলীয়ঢ গণতন্ত্রের প্রবর্তক বলার। এজন্য তাকে ইম্পিচ করা উচিত ছিলো।

সভা্পতির ব্কতব্যে শিতাংশু গুহ বলেন বাংলাদেশ আমার দেশ-এই মাটিতে দাড়িঁয়েই আমার অধিকার আদায় করে নিবো। তিনি সংখ্যা লঘু নির্যাতনের বিরুদ্ধে সরকারকে সোচ্চার হবার পাশাপাশি একটি বিচার বিভাগীয় ট্রাইব্যুনাল গঠন করে ২০০১ সাল থেকে এপর্যন্তি সংগঠিত সকল নির্যতিনের বিচার দাবী করেন।

রংপুরের ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টন ঐক্য পরিষদের যুক্তরাষ্ট্র শাখার সাধারণ সম্পাদক স্বপন দাস।

LEAVE A REPLY