বস্টনে নিউ ইংল্যান্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালণ

0
55

স্বাধীনতার স্থপতি মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালণে বস্টনে নিউ ইংল্যান্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে এক আলোচনা সভা এবং চট্টগ্রাম সিটি’র সাবেক মেয়র এবং নগর আওয়ামীলীগের সভাপতি চট্টলবীর এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর প্রয়াণে শোকসভা আয়োজিত হয়। সংগঠণের সভাপতি যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ইউসুফ চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক ইকবাল ইউসুফের পরিচালনায় গত ১৩ই জানুয়ারী শনিবার ক্যম্ব্রিজের এক মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানের শুরুতে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের এবং প্রয়াত চট্টলবীর মহিউদ্দিন চৌধুরীর স্মরণে সকলে দাড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করেন।

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনায় ঊঠে আসে মুক্তিযুদ্ধে বীর বাঙ্গালীর বিজয় এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্ত স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে আসার মাধ্যমে সে বিজয়ের পূর্ণতা লাভ। আলোচনায় বক্তারা বলেন এ দিন স্বাধীন বাংলার নতুন সূর্যালোকে ইতিহাসের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ফিরে আসেন তার প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশে। অসাম্প্রদায়িক ও জঙ্গিবাদমুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণের প্রত্যয়ে জাতির পিতার ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস চির অনুপ্রেরণাদায়ী।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে প্রয়াত সাবেক মেয়র এবং আওয়ামী লীগ নেতা এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী স্মরণে এক শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তারা বলেন চট্টল বীর জননন্দিত নেতা মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে চট্টগ্রামসহ দেশ ও জাতির অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। বক্তারা বলেন বঙ্গবন্ধুকে এবং তাঁর আদর্শ বুকে ধারণ করেছিলেন মহিউদ্দিন চৌধুরী, আর তাই বঙ্গবন্ধুর ন্যায় জনগণ, দেশ ও জাতির স্বার্থ রক্ষায় তিনি কোনদিন আপোষ করেননি। দেশপ্রেম ও চট্টগ্রামের প্রতি তার ভালবাসা ছিল প্রগাঢ়। সারাজীবন মানুষের কল্যাণে তিনি নিজের জীবন নিবেদিত করে রেখেছিলেন। এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী শুধু একজন রাজনীতিবিদই ছিলেন না, তিনি ছিলেন চট্টগ্রামের অভিভাবক। স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন, বন্দর রক্ষা আন্দোলন ও অসহযোগ আন্দোলনে চট্টগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছেন চট্টলবীর মহিউদ্দিন চৌধুরী। বার্ধক্যে এবং শারীরিক অসুস্থতায় রাজনীতির মাঠ ছেড়ে যাননি তিনি।

এক এগার’র দালালদের উদ্দেশ্যে বক্তারা বলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনার মত মহিউদ্দিন চৌধুরীকেও সেসময় নিগৃহীত হতে হয়েছিল। বস্টনে আজ সংস্কারপন্থী সেই দালালেরা ভোল পাল্টে দলের জন্য দরদী সাজতে চাইছে। তাদের সব সংস্কারপন্থী কর্ম কান্ড দলীয় হাই কমান্ড অবগত আছেন। দিনে মিছিলে মিশে গিয়ে রাতে মঈন ইউ আহমদের সভায় কোন বড়ূয়া সাউন্ড সিস্টেম নিয়ে সহযোগীতা করেছিল এবং সেই সভায় অংশগ্রহণ করেছিল তার সব তথ্য আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের কাছে আছে।

আলোচনায় অংশ নেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ডঃ সৈয়দ আবু হাসনাত, নিউ ইংল্যান্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক, আবু মনসুর, হারুন রশিদ, সালাউদ্দিন চৌধুরী, তপন চৌধুরী, নুর হোসেন, জিয়াউল হাসান, আজমল হোসেন, মোঃ রহমান বাবুল, আবু আলম, মোহাম্মদ পাটোয়ারী, সেলিম চৌধুরী, আব্দুস সালাম প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here