বাংলাদেশ নিয়ে আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব নেই! যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষের আর্থিক সহযোগিতায়েআয়োজন !

দস্তগীর জাহাঙ্গীর, ভার্জিনিয়া থেকে: বৃহস্পতিবার পহেলা ফেব্রুয়ারি জর্জ টাউন ভার্সিটির আইন বিভাগের সেমিনার হলে ‘ আন্তর্জাতিক সঙ্কট নিরসন ও আন্তর্জাতিক অপরাধমূলক জবাবদিহিতার অভাব বাংলাদেশে বিষয়ক‘ একটি প্যানেল আলোচনার আয়োজন করা হয়।

আলোচনার আন্তর্জাতিক সঙ্কট নিরসন এবং আন্তর্জাতিক অপরাধমূলক জবাবদিহিতার অভাব বাংলাদেশে বিষয় বলা হলেও প্যানেলে আলোচনায় বাংলাদেশ সরকারের তথা বাংলাদেশের কোন প্রতিনিধিত্ব না থাকায় দর্শক সারিতে উপস্থিত স্থানীয় দেশপ্রেমী স্বাধীনতার পক্ষের দর্শক শ্রোতাদের মাঝে ক্ষোভের সঞ্চার হয়।

আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এম্বাসেডর এট লার্জ স্টিফান রেপ – ‘গ্লোবাল ক্রিমিনাল জাস্টিস’, টবি কেডম্যান ও আল্মোডেনা বের্নাবিউ গার্নিকা ৩৭ এর সহ-প্রতিষ্ঠাতাদ্বয়।

দর্শক সারিতে এসময় যুদ্ধাপরাধে দণ্ডিত আসামিদের নিকট আত্মীয়দের উপস্থিত ও টবী কেডম্যানের উপস্থিতিতে সকলেই অনুমান করতে পারেন যে এটা একটি পরিকল্পিত বাংলাদেশ বিরোধী প্রচারণার অংশ।

এক ঘন্টার এই আলোচনায় প্রায় ৫৫ মিনিট সময়ই আলোচকগণ কথা বলতে থাকেন সঞ্চালক ডেভিড ম্যককিনের সঞ্চালনায়। সময় ক্ষেপণের ইচ্ছেকৃত ভাব দেখা যায় সঞ্চালকের মাঝে। বাকী ৫ মিনিট মাত্র বরাদ্দ রাখা হয় সকলের প্রশ্নোত্তরে জন্য।
প্রধান আলোচক এম্বাসেডর এট লার্জ স্টিফান রেপ তার আলোচনায় বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ ও তৎকালীন সময়কার ইউএস নীতির কথা সহ যুদ্ধাপরাধীদের কথা তুলে ধরেন ও ট্রাইবুনালের পদ্ধতিগত বিষয়ের উপর আলোকপাত করেন। তিনি বলেন তখনকার ইউএস সরকার প্রধান ভুল পথে ছিলেন জন এফ কেনেডি সঠিক পথে ছিলেন।

মাহবুব হাসান সালেহ (উপ প্রধান, বাংলাদেশ দুতাবাস) তার ক্ষোভ প্রকাশ করে আলোচকগণের কাছে প্রথমেই প্রশ্ন রাখেন যেখানে বাংলাদেশ নিয়ে আলোচনা সেখানে আলোচক হিসেবে তিনি প্যানেলে থাকলেই আলোচনা অনুষ্ঠানটি গুরুত্ব পেত। বাংলাদেশকে নিয়ে পরবর্তীতে এধরণের আলোচনায় বাংলাদেশ সরকারের প্রতিনিধি রাখার উপর গুরুত্ব আরোপ করেন তিনি। তিনি সময়ের স্বল্পতার মাঝেও প্যানেল আলোচকদের আলোচনার তীব্র বিরোধিতা করেন ও বাংলাদেশে যে আইনের শাসন চলছে তার উদারণ হিসেবে নারায়ণগঞ্জের ৭ খুনের মামলা ও তাতে ২৩ জন র‌্যাব সদস্যের বিভিন্ন মেয়াদী কারদন্ড ও ফাঁসীর আদেশের কথা তুলে ধরেন। এসময় বাংলাদেশ জামাতে ইসলামির যুদ্ধাপরাধে দন্ডিত অপরাধীদের পক্ষে আন্তর্জাতিক লবিষ্ট টোবি কেডম্যানকে বিমর্ষ দেখা যায় ও তিনি কোন উত্তর দিতে সক্ষম হননি।

এডঃ অমর ইসলাম ( প্রাক্তন প্রসেকিউটর, যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল) প্রধান আলোচক এম্বাসেডর এট লার্জ স্টিফান রেপ ও টবি কেডম্যানর সাথে অভিশংসক হিসেবে বাংলাদেশে ও ডেন হ্যাগ কাজের কথা মনে করিয়ে দিয়ে প্রশ্ন রাখেন, ” আমি আজ সত্যি জানতে চাই এখানে এ ধরণের আলোচনার সরাসরি বা পিছন থেকে কারা অর্থের যোগানদাতা? না হলে দর্শক সারিতে দন্ডপ্রাপ্ত যোদ্ধাপরাদীদের সন্তানেরা এখানে কি ভাবে উপস্থিত থাকে? টবি কেডম্যান তখন আসলেই কোন উত্তর দিতে না পেরে হতাশা প্রকাশ করতে থাকেন। অমর ইসলাম তার বক্তব্যে বাংলাদেশের যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল আন্তর্জাতিক মানদণ্ডের ভিত্তিতেই সকল বিচার কার্য পরিচালনা করছে ও তা সম্পুর্ন স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ তিনি দাবী করেন। উদাহরণ স্বরুপ বলেন ট্রাইবুনালে সকল পক্ষের অবাধ উপস্থিতি ও বিচার পদ্ধতিগত স্বচ্ছতা আপনাদের জানা আছে।

দস্তগীর জাহাঙ্গীর তুঘ্রীল, (উপদেষ্টা ভার্জিনিয়া) আলোচকদের কাছে প্রশ্ন রাখেন যেখানে বাংলাদেশ জন্ম নিয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে একটি ধর্মনিরেপেক্ষ রাষ্ট্র হিসেবে, যেখানে এসকল ধর্মীয় উগ্রীবাদীরা ধর্মের দোহায় দিয়ে ৩০ লক্ষ মানুষ ও ২ লক্ষ মায়েদের সম্ভ্রম লুট করেছে তাঁদের পক্ষ নিয়ে জর্জ টাউন ভার্সিটির মত পবিত্র ও পরিচিত প্রতিষ্ঠানে এধরণের তথাকথিত আলোচনা মানায় না। তিনি আরো প্রশ্ন রাখেন ও বলেন যে সঞ্চালক বলেছেন বাংলাদেশে গত নির্বাচন সকল বিরোধী দল নাকি বয়কট করে তা সম্পুর্ন ঠিক নয়। তিনি বলেন বর্তমান সরকার কোন একক দলের সরকার নয় তা একটি জোটের সরকার ও সংসদে কার্যকরী বিরোধী দল ও বিদ্যমান। গত নির্বাচনে একটি দল নির্বাচন থেকে বিরত থাকে এবং তা তাদের গনতান্ত্রিক অধিকার।

অনুষ্ঠান শেষে অনুষ্ঠান স্থলের বাইরে স্থানীয় দেশদ্রোহীদের দেখে আলতাফ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ভার্জিনিয়া আওয়ামীলীগ,ও মোস্তাফিজুর রহমান যুগ্ম-সম্পাদক বৃহত্তর ওয়াশিংটন আওয়ামী যুবলীগ জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু ও ৭১ হাতিয়ার গর্জে উঠুক আরেকবার ধ্বনি তুলেন।

আলোচনা অনুষ্ঠানে আইনের ছাত্র ছাত্রীরা সহ উপস্থিত ছিলেন মাহবুব হাসান সালেহ উপ প্রধান, বাংলাদেশ দুতাবাস, মোঃ নুরুল ইসলাম কাউন্সেলর – রাজনৈতিক, বাংলাদেশ দুতাবাস, এডঃ অমর ইসলাম প্রাক্তন অভিশংসক , যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল ও সাধারণ সম্পাদক ভার্জিনিয়া আওয়ামীলীগ, দস্তগীর জাহাঙ্গীর তুঘ্রীল, উপদেষ্টা ভার্জিনিয়া আওয়ামীলীগ, আলতাফ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ভার্জিনিয়া আওয়ামীলীগ,ও মোস্তাফিজুর রহমান যুগ্ম-সম্পাদক বৃহত্তর ওয়াশিংটন আওয়ামী যুবলীগ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here