বাংলাদেশী কমিউনিটিতে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে এশিয়ান অ্যামেরিকান হেল্থ সেন্টারের বিভিন্ন স্বাস্থ্য সেবা

নিউইয়র্ক: নিউ ইয়র্কে বসবাসকারী বাংলাদেশীদের মধ্যে উচ্চ রক্তচাপের প্রভাব আশংকাজনকভাবে বেড়ে চলছে। গবেষণায় দেখা গেছে যে নিউ ইয়র্ক সিটির প্রায় প্রতি পাঁচজন বাংলাদেশীর মধ্যে একজন উচ্চ রক্তচাপে ভোগেন।উচ্চ রক্তচাপের কারণে স্ট্রোক, হৃদরোগ সহ অন্যান্য মারাত্মক স্বাস্থ্যগত সমস্যা হয়। স্বাস্থ্য সম্মত খাবারের সুযোগ বাড়িয়ে এবং নিজস্ব কালচারে স্বাস্থ্য শিক্ষা প্রদান করে নিউ ইয়র্কে বসবাসকারী বাংলাদেশীদের উচ্চ রক্ত চাপ যাতে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়, সেই জন্যে নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটির এশিয়ান অ্যামেরিকান হেল্থ সেন্টারের একটি গুরুত্বপূর্ণ স্বাস্থ্য প্রোগ্রাম রেশ্যাল এন্ড এথনিক এ্যাপ্রোচেস টু কমিউনিটি হেল্থ ফর এশিয়ান আমেরিকান্স–যা রিচ ফার প্রজেক্ট নামে পরিচিত–কমিউনিটিতে বিভিন্ন স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে আসছে। উচ্চ রক্ত চাপ এবং কার্ডিওভাসকুলার সংক্রান্ত রোগ (যেমন ডায়বেটিস) মোকাবিলা করতে রিচ ফার স্থানীয় বিভিন্ন মসজিদ, সিনিয়র সেন্টার, রেস্টুরেন্ট, বাংলাদেশী প্রাইভেট ডাক্তার, ফার্মেসী, গ্রোসারী এবং নিউ ইয়র্ক সিটি ডিপার্টমেন্ট অব হেল্থ এর সাথে বিগত প্রায় ৪ বছর ধরে একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। রিচ ফার প্রজেক্ট চারটি এশিয়ান আমেরিকান কমিউনিটির সাথে শুরু থেকে কাজ করে আসছে। বংলাদেশী কমিউনিটির সাথে ড্রীম কোয়ালিশন, ফিলিপিনো কমিউনিটির সাথে কালুসুগান কোয়ালিশন, কোরিয়ান কমিউনিটির সাথে কোরিয়ান কমিউনিটি সার্ভিসেস, এবং ইন্ডিয়ান কমিউনিটির সাথে ইউনাইটেড শিখ কাজ করে আসছে। এই প্রজেক্টে প্রতিটা সংঘটনের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য এক যা হল নিজ নিজ কমিউনিটির স্বাস্থ্য উন্নয়ন।

রিচ ফার প্রজেক্টের একটি জনপ্রিয় প্রোগ্রাম হল কিপ অন ট্র্যাক। এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে সেন্টার ফর দ্যা স্টাডি অব এশিয়ান আমেরিকান হেল্থ এর অন্তর্গত ড্রীম কোয়ালিশনের কমিউনিটি স্বাস্থ্যকর্মীরা (যারা নিউ ইয়র্ক সিটি ডিপার্টমেন্ট অব হেল্থ দ্বারা প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত) কমিউনিটি ভিত্তিক সংগঠন এবং ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান যেমন মসজিদের স্বেচ্ছাসেবকদের প্রশিক্ষণ প্রদান করেন। প্রশিক্ষিত স্বেচ্ছাসেবীরা এরপর থেকে  তাদের প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচী পরিচালনা করে আসছেন। এটা একটা সম্পূর্ণ ফ্রী প্রোগ্রাম, এবং এই প্রোগ্রামে অংশ নিতে ইনসিওরেন্স এর দরকার নেই। বাংলাদেশী কমিউনিটির বাইতুল মামুর মসজিদ, বাংলাদেশ মুসলিম সেন্টার, জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে অবস্থিত ইন্ডিয়া হোম সিনিয়র সেন্টার, মদিনা মসজিদ, এবং আসসাফা ইসলামিক সেন্টারে কিপ অন ট্র্যাক প্রোগ্রাম বাস্তবায়িত হয়েছে। প্রাথমিক বিশ্লেষণ অনুযায়ী দেখা গেছে যে উক্ত প্রোগ্রামে অংশগ্রহণকারীদের উচ্চ রক্তচাপ অংশগ্রহণের শুরুতে যা ছিল, অংশগ্রহণের পর তা অনেক ভাল(শুরুতেসিস্টোলিক এবং ডায়াস্টোলিক ব্লাড প্রেশার ছিলো গড়ে ১২৬ এবং ৮১, কিন্তু প্রোগ্রামে অংশগ্রহণের পর তা ১২০ এবং ৭৯ তে নেমে আসে)।তাছাড়াপ্রোগ্রামে

অংশগ্রহণকারী সদস্যরাকোথা হতে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য সেবা পাবেন সে ব্যাপারেআগের থেকে আরওবেশী আত্মবিশ্বাসী। স্বেচ্ছাসেবক এবং প্রোগ্রামে অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশী কমিউনিটির সদস্যরা এরকম একটি প্রোগ্রামের প্রশংসা করেন এবং এর আরও প্রসার কামনা করেন।

কমিউনিটির সদস্যদের স্বাস্থ্যকর খাবার বিষয়ে সচেতন করতে রিচ ফার প্রজেক্ট বিভিন্ন পুষ্টি বিষয়ক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। রিচ ফার প্রজেক্টের কমিউনিটি স্বাস্থ্যকর্মীরা স্থানীয় সিনিয়র সেন্টার এবং মসজিদে পুষ্টি বিষয়ক বিভিন্ন ক্লাস পরিচালনা করেন এবং এসব প্রতিষ্ঠানে যেন আরও স্বাস্থ্যকর খাবার যেমন ফল, টাটকা সালাদ, সব্জি, ব্রাউন রাইস পরিবেশন করা হয়–এই ব্যাপারে প্রতিষ্ঠানগুলোর সাথে সম্মিলিত ভাবে কাজ করে আসছেন। এছাড়া নিউ ইয়র্ক সিটি ডিপার্টমেন্ট অব হেল্থ এর সাথে মিলে রিচ ফার প্রজেক্ট “কিপ অন ট্র্যাকঃ স্বাস্থ্যকর জীবন-যাপনের সহজ উপায়” নামক একটি পুস্তিকা বের করেছে যাতে স্বাস্থ্যকর খাবার এবং কার্যক্রম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা রয়েছে। যে কেউ ৩১১ এ কল করে এই বইটির জন্য অনুরোধ করতে পারবেন। “বিল্ডিং এ হেল্থি প্লেট” বা “স্বাস্থ্যকর প্লেট” নামে আরেকটি সহজ উপকরণ উনারা তৈরি করেছেন। এই প্লেটে দেখানো হয়েছে কিভাবে প্লেটে স্বাস্থ্যকর খাবার পরিবেশন করা যায়। মে মাসের ৭ এবং ৯ তারিখে রিচ ফার প্রজেক্টের কমিউনিটি স্বাস্থ্য কর্মীরা বাংলাদেশ মুসলিম সেন্টার এবং বাইতুল মামুর মসজিদের মুসল্লিদের মাঝে “কিপ অন ট্র্যাকঃ স্বাস্থ্যকর জীবন-যাপনের সহজ উপায়” এবং “বিল্ডিং এ হেল্থি প্লেট” বা “স্বাস্থ্যকর প্লেট” বিতরণ করেন এবং এগুলো নিয়ে আলোচনা করেন। উপস্থিত অনেকেই বলেন যে এরকম বই এবং প্লেট পদ্ধতি উনাদের জন্য অনেক উপকারী হবে। বাংলাদেশ মুসলিম সেন্টারের একজন সদস্য বলেন, “এই প্লেট পদ্ধতি বুঝা আমার জন্য অনেক সহজ। আমি এই পদ্ধতি অনুসরণ করব এবং আমার খাবার টেবিলের ওয়ালে এটা লাগিয়ে রাখব”। এছাড়া পবিত্র রমজান মাসে ড্রীম কোয়ালিশন কমিউনিটির বিভিন্ন মসজিদে মসজিদ কমিটির সাথে সম্মিলিত ভাবে ইফতারে স্বাস্থ্যকর খাবার যেমন তাজা ফল এবং সালাদ পরিবেশন করে। আলাদা পরিবেশে মহিলারাও স্বাস্থ্যকর ইফতারে অংশ নেন। গত ৭ ই জুন ড্রীম কোয়ালিশনের নাহার আলম বাইতুল মামুর মসজিদের মহিলাদের নিয়ে স্থানীয় একটি বাড়িতে এরকম একটি ইফতারের আয়োজন করেন যাতে মহিলারা তাদের পরিবার নিয়ে স্বাস্থ্যকর ইফতারে অংশগ্রহণ করেন। উপস্থিত সকলেই এরকম প্রোগ্রাম এবং খাবারের প্রশংশা করেন।

এছাড়া রিচ ফার প্রজেক্ট স্থানীয় বিভিন্ন ফার্মেসীর সাথে কাজ করে আসছে। যেসকল রোগীদের উচ্চ রক্তচাপ আছে, ফার্মাসিস্টগণ তাদেরকে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের জন্য বাংলায় অনুবাদিত বিভিন্ন স্বাস্থ্যতথ্য প্রদান করেন এবং প্রয়োজনীয় পরামর্শও দিয়ে থাকেন। উল্লেখ্য যে এসব অনুবাদিত স্বাস্থ্য তথ্য রিচ ফার প্রজেক্টের কর্মীরা মিলিয়ন হার্টস নামক একটি প্রোগ্রামের অংশ হিসাবে ফার্মেসীগুলোতে নিয়মিত সরবরাহ করে থাকেন। মিলিয়ন হার্টস প্রোগ্রামের লক্ষ্য হল হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোক প্রতিরোধ করা।

বাংলাদেশী কমিউনিটির রিচ ফার প্রোজেক্ট সম্পর্কে আরও তথ্য জানতে ২১২-২৬৩-৫০৫৪ নাম্বারে গুলনাহার (নাহার) আলমের সাথেযোগাযোগ করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here