থাইল্যান্ডের সেই গুহায় পৌঁছাতে পারল উদ্ধারকারীরা

0
16

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: বড়সড় ‘কেভ মিশন’। হঠাৎ মনে হবে হলিউডের কোনও Mission impossible। দৈত্য প্রমাণ গুহা জলমগ্ন, সেই এক বুক জলে নেমে পড়েছে সেনা। না, কোনও ছবির শ্যুটিং নয়। বাস্তবটা ভয়ঙ্কর। বন্যাবিধ্বস্ত থাইল্যান্ডের থাম লাং গুহায় আটকে ১২ খুদে। কেটে গেছে ৮ দিন, খোঁজ নেই ১২ খুদে ফুটবলার সহ সহকারী কোচের। নানারকম প্রাকৃতিক প্রতিকূলতা কাটিয়ে, রবিবার ওই গুহায় পৌঁছাতে পারল থাইল্যান্ডের উদ্ধারকারী দল।

২৩ জুন ১২ খুদে ফুটবলারকে নিয়ে থাম লাং গুহায় ঘুরতে যান সহকারী কোচ। ভারী বৃষ্টির জেরে সেখানেই আটকে পড়েন তারা। তারপর থেকে খোঁজ নেই ১২ খুদে ফুটবলার ও কোচের। ভারী বৃষ্টি, বন্যার জেরে এতদিন থাম লাং গুহায় পৌঁছাতে পারেনি উদ্ধারকারী দল। গুহার বাইরে ও ভেতরে জলস্তর বাড়তে থাকায়, গুহার মুখ থেকে উদ্ধারকারীরা ফিরে যেতে হয়।

অবশেষে রবিবার বৃষ্টি কম হওয়ায় গুহায় পৌঁছতে পারে উদ্ধারকারী দল। তবে গুহায় পৌঁছালেও বাকি পথ কঠিন থেকে কঠিনতর। ১২ খুদে ও কোচের কোনও হদিস নেই। তাই আন্দাজ করেই অন্ধকার গুহা হেডলাইট দিয়ে পার হচ্ছে উদ্ধারকারী দল।

থাইল্যান্ডের সবচেয়ে বড় ও দীর্ঘ গুহা থাম লাং। গুহার পথও যথেষ্ট কঠিন। পাথরের চাঁই চারিদিকে। জলমগ্ন গুহার ভেতরের রাস্তা বেশ পিচ্ছিল। ভারী বৃষ্টি অনবরত হওয়ায়, গুহা আরও ভয়ানক। এই গুহা দিয়ে টানা হাটলে পৌঁছানো যাবে মিয়ানমারে। তাই উদ্ধারকাজে মিয়ানমার সেনারও সাহায্য চেয়েছে থাইল্যান্ড। কাজের সুবিধায় কয়েকটি ভাগে উদ্ধারকারী দলকে ভাগ করা হয়েছে।

উদ্ধারাকরী দল জানাচ্ছে, থাম লাং গুহার কাছাকাছি রয়েছে থাইল্যান্ড নৌসেনার অফিস। উদ্ধারকাজে তারাও হাত মিলিয়েছে। গুহার ২-৩ কিলোমিটার ভেতরে এই দল পৌঁছেছে। মনে করা হচ্ছে, এই ২-৩ কিলোমিটারের মধ্যেই আটকে ১২ খুদে ও কোচ।

আটকে পড়া মানুষের খোঁজে কিছু সেনা বড় চিমনি হাতে, কেউ বা অক্সিজেন সিলিন্ডার হাতে গুহার ভেতর প্রবশ করছে। গুহার ভেতর নেই খাবার, নেই আলো বাতাস। কেটে গেছে ৮ দিন। ১২ খুদে ফুটবলার,তাদের কোচের কোনও হদিস নেই। আশ্বাস একটাই, ৮ দিনের মাথায় ভারী বৃষ্টি কমেছে। নতুন করে বিপর্যস্ত হয়নি থাম লাং গুহা। তাই খতিয়ে দেখা হচ্ছে গুহায় নিখোঁজ খুদেদের পায়ের ছাপ, বাইসাইকেল ও পিঠের ব্যাগ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here