পাকিস্তানের সঙ্গে উত্তাপ বাড়ছে যুক্তরাষ্ট্রের

0
17

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: সন্ত্রাস দমনে ব্যর্থতার অভিযোগে পাকিস্তানকে দেয়া ৩০ কোটি ডলার অর্থ সহায়তা স্থগিত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছে পাকিস্তান। ফলে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পাকিস্তানের উত্তাপ বাড়ছে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর আসন্ন পাকিস্তান সফরে এ বিষয়ে আলোচনা করা হবে বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মোহাম্মদ কুরেশি।

ওদিকে বিশ্লেষকরা বলছেন, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে টানাপোড়েনের কারণে পাকিস্তান আরো বেশি করে চীনের দিকে ঝুঁকে প ড়বে।

গত ১৮ই আগস্ট পাকিস্তানের ২২তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন দেশটির সাবেক তারকা ক্রিকেটার ইমরান খান। দায়িত্ব গ্রহণের পর ব্যয় সংকোচন নীতিসহ অভ্যন্তরীণ নানা বিষয়ে নানা পদক্ষেপ নিয়ে একের পর এক চমক দেখাতে থাকেন পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফের এই নেতা।

তবে সরকার গঠনের ১৫ দিনের মাথায় কূটনৈতিক চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েন পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী। গত শনিবার ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ পাকিস্তান সফরে গেলে আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা রক্ষায় ইরানের সাথে একসঙ্গে কাজ করার ঘোষণা দেয় পাকিস্তান।

আর ওই সফরের একদিন পরই সন্ত্রাসবাদ দমনে ব্যর্থতার অভিযোগ এনে পাকিস্তানকে ৩০ কোটি ডলারের সামরিক সহযোগিতা বন্ধের ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের এমন অভিযোগ মানতে নারাজ ইসলামাবাদ। সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের জনগণ প্রতিনিয়ত লড়াই করে চলছে উল্লেখ করে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আগামী বুধবারের বৈঠকে এর কারণ জানতে চাওয়া হবে।

শাহ মোহাম্মদ কুরেশি বলেন, সন্ত্রাসবাদ কোনো দেশের একক সমস্যা নয়। এটি বর্তমানে আঞ্চলিক তথা বৈশ্বিক সমস্যা। এই সমস্যা দূর করতে হলে সবাইকে যৌথভাবে এগিয়ে আসতে হবে। সন্ত্রাসবাদ দমনে পাকিস্তান সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছ। আমাদের সেনাবাহিনী এবং সাধারণ মানুষ প্রতিদিনই অনেক ত্যাগ স্বীকার করছে। ইতিবাচক চিন্তা নিয়ে সম্মিলিতভাবে রুখে দাঁড়ালেই কেবল সন্ত্রাসবাদ দমন সম্ভব।

মাইক পম্পেওর সফরের আগে, পাকিস্তানকে কঠোর বার্তা দিতেই যুক্তরাষ্ট্র এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, এর ফলে চীনের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক আরো জোরদার করবে পাকিস্তান।

শশাঙ্ক জোশি (সিনিয়র রিসার্চ ফেলো, আরইউএসআই) বলেন, চীন-পাকিস্তান ইকোনোমিক করিডর প্রকল্পে বিশাল অংকের অর্থ বিনিয়োগ করছে চীন। এছাড়া, চীনের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র কিনে থাকে পাকিস্তান। সন্ত্রাস দমনে পাকিস্তান যুক্তরাষ্ট্রকে তাদের বিমান ঘাঁটি ব্যবহারসহ নানা সুযোগ সুবিধা দিয়ে আসছে। পেন্টাগনের এমন পদক্ষেপের কারণে পশ্চিমা দেশগুলোর কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে চীনমুখী হতে পারে পাকিস্তান।

সন্ত্রাসবাদ দমনে গত ১৫ বছরে পাকিস্তানকে ৩ হাজার ৩০০ কোটি মার্কিন ডলার অর্থ সহায়তা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতা গ্রহণের পর আফগানিস্তানে তালেবান নির্মূলে পাকিস্তানকে জোরালো ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান ডোনাল্ড ট্রাম্প। পরে পাকিস্তান সন্ত্রাসীদের নিরাপদ স্বর্গ হিসেব ব্যবহৃত হয়-এমন অভিযোগ তুলে সবধরনের নিরাপত্তা সহায়তা বন্ধের হুমকি দেয় ওয়াশিংটন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here