থামতে হলো টেনিস কিং ফেদেরারকে

0
15

স্পোর্টস ডেস্ক: কিংবদন্তিকেও থামতে হয়। যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের অষ্টম দিনেই বিদায় নিলেন বিশ্বের দুই নম্বর খেলোয়াড় রজার ফেদেরার। যুক্তরাষ্ট্র ওপেনে পাঁচ বারের চ্যাম্পিয়ন ফেদেরার এ দিন জিতলে পুরুষদের সিঙ্গলস কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি হতেন নোভাক জোকোভিচের। কিন্তু গত ১০ বছর অপেক্ষা করার পরে এবারও যুক্তরাষ্ট্র ওপেন জিততে ব্যর্থ হলেন ২০টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম খেতাবের মালিক ফেদেরার।

সুইজারল্যান্ডের এই টেনিস তারকা হেরেছেন বিশ্বের ৫৫ নম্বর খেলোয়াড় অস্ট্রেলিয়ার জন মিলম্যানের কাছে। ম্যাচের ফল, ৩-৬, ৭-৫,৭-৬ (৯/৭), ৭-৬ (৭/৩)। যুক্তরাষ্ট্র ওপেনে এই প্রথম এটিপি র‌্যাঙ্কিংয়ে প্রথম পঞ্চাশের বাইরে থাকা কোনো খেলোয়াড়ের কাছে হারলেন এই সুইস তারকা। ফেদেরারের বিপক্ষে ম্যাচ জিতে আনন্দে বিহ্বল হয়ে পড়েন মিলম্যান।

আর্থার অ্যাশ স্টেডিয়ামে ৩ ঘণ্টা ৩৫ মিনিট ফেদেরারের বিপক্ষে লড়ে ম্যাচ জেতার পরে ২৯ বছরের এই অস্ট্রেলীয় টেনিস খেলোয়াড়ের প্রতিক্রিয়া, ‘খেলা শেষ হওয়ার পরে বিশ্বাস হচ্ছিল না। রজার ফেদেরার আমার স্বপ্নের খেলোয়াড়। রজারকে খুব শ্রদ্ধা করি। স্বপ্নের সেই নায়ককে হারিয়েছি, ভাবলেই গায়ে কাঁটা দিচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এদিন রজার হয়তো নিজের সেরা ছন্দে ছিল না। তাই নিজেকে অপরাধী লাগছে। কিন্তু হেরে গেলেও ফেদেরার আমার কাছে একজন চ্যাম্পিয়ন। যখনই কেরিয়ারে কোনও সমস্যায় পড়েছি, রজারের কাছ থেকে মূল্যবান পরামর্শ পেয়েছি।’

আর পরাজিত ফেদেরার বলছেন, ‘দারুণ গরম ছিল আজ। খুব ঘাম হওয়ায় অস্বস্তি বোধ হচ্ছিল। শ্বাস নিতেও কষ্ট হচ্ছিল এক সময়। জীবনে প্রথম বার এই অভিজ্ঞতা হল। তাই ম্যাচ শেষ হওয়ার পরে হাঁফ ছেড়ে বেঁচেছিলাম। যদিও ঠিক একই পরিবেশ ও পরিস্থিতিকে দুর্দান্ত ভাবে সামলেছে জন।’

ফেদেরার যার কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন, ‘বিশ্বের অন্যতম আর্দ্র ও উষ্ণ জায়গা হল অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেন। জন সেখানেই বেড়ে উঠেছে। ফলে এই গরম ও আর্দ্রতা সামলাতে ওর কোনও সমস্যা হয়নি। আমার বয়সটাও ২১ নয়। তবে বুড়ো হয়ে গিয়েছি, সেটাও বলছি না। কিন্তু প্রত্যেকের শরীরেই একটি শারীরবৃত্তীয় ঘড়ি রয়েছে। সেটা আজ আমার পক্ষে কাজ করেনি।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here