‘ইসিকে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন নিশ্চিত করতে হবে’

0
9

ঢাকা: শক্তিশালী গণতন্ত্র চর্চায় আরপিও ও সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন আয়োজন করতে বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন দায়বদ্ধ বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী। বুধবার রাজধানীর এক হোটেলে দুই দিনব্যাপী ফোরাম অব ইলেকশন ম্যানেজমেন্ট বডিস অব সাউথ এশিয়ার (ফেম্বোসা) নবম সম্মেলনের উদ্বোধনকালে তিনি এ কথা বলেন।

শিরিন শারমিন বলেন, নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) অবশ্যই অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন নিশ্চিত করতে হবে। অবাধ, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন গণতন্ত্রের মূল ভিত্তি। নির্বাচন কমিশনকে অবশ্যই অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন নিশ্চিত করতে হবে। নির্বাচনে স্বচ্ছতা নিঃসন্দেহে কঠিন। নির্বাচনে অংশীজনদের অংশগ্রহণ নিশ্চিতের মাধ্যমে জনগণের প্রতিনিধি বেছে নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

রাজনৈতিক দল, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী, ভোটার, গণমাধ্যম, সরকারি প্রতিষ্ঠান ও জনগণ কমিশনের গুরুত্বপূর্ণ অংশীজন। নির্বাচনে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে হলে অংশীজনদের যুক্ত করতে হবে। এসময় প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেন, সংবিধান অনুযায়ী অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে নির্বাচন কমিশন প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

দুই দিনব্যাপী এ সম্মেলনে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর ১ম সাধারণ অধিবেশনে ফেমবোসার বর্তমান চেয়ারম্যান বাংলাদেশের প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদার নিকট ফেমবোসার চেয়ারম্যানশিপ হস্তান্তর করবেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর তিনটি সাধারণ ও আটটি টেকনিক্যাল সেশন অনুষ্ঠিত হবে। এসব সেশনে অংশগ্রহণকারীরা নির্বাচনের বিভিন্ন বিষয়ে আলোকপাত করবেন।

এতে সভাপতিত্ব করছেন ফেমবোসার বর্তমান চেয়ারম্যান ও আফগানিস্তানের নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান গুলাজান আবদুল বাদি সায়েদ। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের উদ্যোগে ২০১০ সালে ঢাকায় সার্ক দেশগুলোর নির্বাচন কমিশনের এক সম্মেলনের মাধ্যমে এ অঞ্চলের দেশগুলোর নির্বাচন বিষয়ে পারস্পরিক সহযোগিতার লক্ষ্যে ফেমবোসার যাত্রা শুরু হয়।

সম্মেলনে ভারত, শ্রীলংকা, আফগানিস্তান, নেপাল ও ভুটানের নির্বাচন কমিশন প্রতিনিধিরা অংশ নেন। তবে নিজ দেশে নির্বাচনী কাজে ব্যস্ত থাকায় পাকিস্তান ও মালদ্বীপের নির্বাচন কমিশনের প্রতিনিধিরা সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেননি। তবে দেশ দুটির বাংলাদেশ কূটনৈতিক মিশনের প্রতিনিধিরা এতে অংশ নেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here