বাংলাদেশে ধনী বাড়ছে সবচেয়ে দ্রুত গতিতে

0
10

ঢাকা: বিশ্বে সবচেয়ে দ্রুতগতিতে ধনী মানুষের সংখ্যা বাড়ছে বাংলাদেশে। বাংলাদেশি টাকায় যাঁর সম্পদ আড়াই শ কোটি টাকার (তিন কোটি ডলার) বেশি, তাঁকেই আলট্রা হাই নেট ওয়ার্থ (ইউএইচএনডাব্লিউ) বা এই ধনী বলে বিবেচনা করা হয়েছে। সম্প্রতি যুক্তরাজ্যভিত্তিক সম্পদ গবেষণা প্রতিষ্ঠান ওয়েলথএক্সের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ধনী মানুষের সংখ্যা বৃদ্ধির হিসাবে সবার ওপরে অবস্থান করছে বাংলাদেশ। এদের সংখ্যা বাড়ছে ১৭.৩ শতাংশ হারে। এর পরের অবস্থানে আছে চীন। সেখানে ধনীর সংখ্যা বাড়ছে ১৩.৭ শতাংশ হারে। এরপর আছে যথাক্রমে ভিয়েতনাম, কেনিয়া, ভারত, হংকং, আয়ারল্যান্ড, ইসরায়েল,

পাকিস্তান ও যুক্তরাষ্ট্র। ২০১২ সাল থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশে প্রতিবছর ১৭ শতাংশ হারে ধনীর সংখ্যা বেড়েছে।

আর সামগ্রিকভাবে বিশ্বে অতি ধনী মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানে অতি ধনী মানুষের সংখ্যা প্রায় ৮০ হাজার। ১৮ হাজার অতি ধনী নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে জাপান। তৃতীয় স্থানে আছে চীন। পাকিস্তান ও যুক্তরাষ্ট্র। ২০১২ সাল থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশে প্রতিবছর ১৭ শতাংশ হারে ধনীর সংখ্যা বেড়েছে।

আর সামগ্রিকভাবে বিশ্বে অতি ধনী মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানে অতি ধনী মানুষের সংখ্যা প্রায় ৮০ হাজার। ১৮ হাজার অতি ধনী নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে জাপান। তৃতীয় স্থানে আছে চীন।

তাঁদের অতি ধনীর সংখ্যা প্রায় ১৭ হাজার। এর পরের অবস্থানে আছে যথাক্রমে জার্মানি, কানাডা, ফ্রান্স, হংকং, যুক্তরাজ্য, সুইজারল্যান্ড ও ইতালি।

ঢাকার সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন বিবিসি বাংলাকে বলেন, ‘বাংলাদেশে সম্পদের একটা কেন্দ্রীভবন হচ্ছে। অর্থাৎ ওপরের দিকে যারা আছে তারা ক্রমান্বয়ে সম্পদশালী হচ্ছে। নিচের দিকে যারা আছে তাদের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতি যতটা না হচ্ছে, তার চেয়ে বেশি উন্নতি হচ্ছে ওপরের দিকে যারা তাদের। ওপরের ৫ শতাংশের হাতে আরো বেশি করে সম্পদ পুঞ্জীভূত হচ্ছে।’

বাংলাদেশে ধনী লোক বাড়ার কারণ প্রসঙ্গে ফাহমিদা খাতুন বলেন, ‘চীন ও ভারতে একসময় যে রকম দ্রুত অর্থনৈতিক অগ্রগতি হয়েছে, সেখান থেকে অবস্থা একটু স্তিমিত হয়েছে। সেটা একটা কারণ। আরেকটা কারণ হচ্ছে বাংলাদেশে ধনী এবং গরিবের মধ্যে যে তফাত, এই তফাত অনেক বাড়ছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here