নিউইয়র্কে ইডিপি’র চতুর্থ বর্ষপূর্তি ও সাধারন সভা অনুষ্ঠিত

বর্ণমালা ডেস্ক: অ্যাম্পাওয়ারিং এন্ড ডেভলপমেন্ট প্রজেক্ট ইন্ক. (ইডিপি)-এর চতুর্থ বর্ষপূর্তি ও সাধারণ সভা বর্ণাঢ্য এক পরিবেশে যুক্তরাষ্ট্রে নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্পূর্ণ অলাভজনক, অরাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ইডিপি’র পথচলা শুরু হয় চার বছর আগে। এ উপলক্ষে নিউইয়র্কের জ্যাকশন হাইটস-এর জুইস সেন্টারে গত ৩ মার্চ এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ইপিডি’র প্রতিষ্ঠাতা ও সেক্রেটারি আম্বিয়া বেগমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ। এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, ডেমোক্রেট রাজনৈতিক দলের নেতা মোর্শেদ আলম, আইনজীবী মোহাম্মদ এন. মজুমদার, আইনজীবী সারোয়ার চৌধুরী, ইডিপির সভাপতি এম এস আলম, ইডিপির পরিচালক আশিকুর রহমান আশিক, বাংলাদেশ আমেরিকান ওইমেন এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ও ডিস্ট্রিক্ট ৮৭ জুডিশিয়াল ডেলিগেট রোক্সানা মজুমদার, নেন্সি পার্নাল এবং নীলা জেরিন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে সূচনা বক্তব্যে ইডিপি’র প্রতিষ্ঠাতা আম্বিয়া বেগম বলেন, ‘আমি মানুষের সেব া করবো এই মনোভাব নিয়ে কাজ শুরু করি ৪ বছর আগে। কারো কাছ থেকে কোন আর্থিক সহযোগিতা না নিয়ে, সম্পূর্ণ নিজের চাকরির পয়সায় ইপিডি গড়ে তুলি। মানব সেবামূলক এই কাজে আমাকে যারা বিভিন্ন পরামর্শ দিয়েছেন, তাদের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। সমাজের বঞ্চিত নারী পুরুষদের জন্য আমরা কাজ করছি। ইমিগ্রান্টদের জন্য আমরা কাজ করছি। যা চলমান থাকবে।’
মোর্শেদ আলম ইডিপি’র কার্যক্রমের প্রশংসা করে বলেন, এটি একটি ভাল উদ্যোগ তবে কঠিন কাজ যা শুরু করেছেন এর প্রতিষ্ঠাতা। আমি তার সফলতা কামনা করছি। এম এন মজুমদার বলেন, ইডিপি শুরু হয়েছে কঠিন ত্যাগের বিনিময়ে, আমি তা দেখিছি। অত্যন্ত পরিশ্রম করার ফসল ইডিপি। ইডিপি সত্যি সত্যি একদিন তার গন্তব্যে পৌঁছাবে তা এখন স্পষ্ট। নেন্সি পার্নাল বলেন, আমি ইডিপির শুরু থেকেই জানি। অনেক পরিশ্রমের পর এর সাফল্য আসতে শুরু করেছে। আরো সাফল্য কামনা করছি। আমেরিকায় চিকিৎসা বিজ্ঞানে আলোচিত বাংলাদেশি নারী নীলা জেরিন বলেন, নতুন প্রজন্মের অনেক কিছু শেখার আছে এখান থেকে। ইডিপি যে ইতিবাচক কাজ হাতে নিয়েছে তাতে আমি সত্যি অভিভুত হয়েছি। ইডিপির সভাপতি এমএস আলম বলেন, অনেক কষ্টের পর সাফল্য আসে ইডিপি তার প্রমাণ। আমরা অত্যন্ত সচেতনভাবে, সততার সঙ্গে কাজ করছি। কারণ আমাদের বহুদূর যেতে হবে। এর পরিচালক আশিকুর রহমান আশিক বলেন, আমার মা যে স্বপ্ন দেখতেন তা আজ বাস্তবে আমি দেখতে পাচ্ছি। ইডিপি তার নিজস্ব পথেই এগুবে।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ বলেন, ইডিপি তার গন্তব্যে যেতে হলে সততা ও নিষ্ঠার পরিচয় দিতে হবে। আমি আশা করি ইডিপি একদিন তা করতে সক্ষম হবে।

অনুষ্ঠানে নীলা জেরিন ও তার নৃত্য দল দর্শকদের মন জয় করে নাচের মাধ্যমে। এর আগে ইডিপির শিক্ষার্থীরা সঙ্গীত পরিবেশন করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here