আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে : কুইন্স ডিস্ট্রিক্ট এটর্ণী প্রাথী মেলিন্ডা কার্টজ

বর্ণমালা ডেস্ক: কুইন্সবরো প্রেসিডেন্ট মেলিন্ডা কার্টজ কুইন্স ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী পদে তার প্রার্থীতার ঘোষণা দিয়েছেন। টানা দুইটার্ম কুইন্স বরো প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালনকালে তিনি বাংলাদেশীসহ দক্ষিণ এশিয়ানদের কাছে বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। বিশেষ করে বাংলাদেশী কম্যুনিটির কাছে মেলিন্ডা কার্টজ পরিক্ষিতি বন্ধু। তার কুইন্স বরো প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচনের প্রথম ঘোষণা দিয়েছিলেন বাংলাদেশীদের একটি অনুষ্ঠানে। জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির একুশের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছিলেন। এবার ও তার ব্যতিক্রম হয়নি। তিনি ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী পদে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন বাংলাদেশীদের নিয়েই। ইতিমধ্যেই তিনি বাংলাদেশী অধ্যুষিত এলাকা জ্যাকসন হাইটস ও জ্যামাইকায় বাংলাদেশীদের নিয়ে তার প্রচারণা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

গত ৯ মার্চ মেলিন্ডা কার্টজকে সমর্থন জানিয়েছে নিউ আমেরিকান ভোটার্স এসোসিয়েশন (নাভা)। এই উপলক্ষে জ্যাকসন হাইটসের ডাইভারসিটি প্লাজায় এক সমর্থন সভার আয়োজন করা হয়। নাভা‘র সভাপতি দিলীপ নাথের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক রোকেয়া আক্তারের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মেলিন্ডা কার্টজ, কুইন্স ডেমোক্রেটিক লিডার এ্যাট লার্জ আইনজীবী মঈন চৌধুরী, সাপ্তাকি বর্ণমালা‘র প্রধান সম্পাদক মাহফুজুর রহমান, বাংলাদেশ সোসাইটির নির্বাচনে সভাপতি প্রার্থী কাজী আশরাফ হোসেন নয়ন, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মুকিত চৌধুরী, ওসমান চৌধুরী,জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং মূলধারার রাজনীতিবিদ ফখরুল ইসলাম দেলোয়ার, এনওয়াই ইন্স্যুরেন্সের প্রেসিডেন্ট এবং জেবিবিএ’র একাংশের সভাপতি শাহ নেওয়াজ, বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সহ সাধারণ সম্পাদক ওসমান চৌধুরী, জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক রেজাউল আজাদ ভূইয়া, কম্যুনিটি লিডার লুৎফর রহমান লাতু, বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা সরাফ সরকার, ডা. মাসুদুল হাসান প্রমুখ। এ ছাড়াও অনুষ্ঠানে পাকিস্তানী, নেপালীসহ দক্ষিণএশিয়ার কম্যুনিটি নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মেলিন্ডা কার্টজ বলেন,কুইন্স বরো হচ্ছে পৃথিবীর সব দেশ ও ধর্মের মানুষের বাসস্থান। এই কুইন্সে আমরা সকল ধর্মের মানুষ সৌহর্দ্য- সম্প্রীতির মাধ্যমে বসবাস করছি। আমি কুইন্স বরোর প্রেসিডেন্ট হিসবে মসজিদে গিয়েছি, গীর্জাসহ অন্যান্য সম্প্রদায়ের উপসনালয়ে গিয়েছি। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আমাদের মধ্যে অনৈক্য সৃষ্টির জন্য নানা ধরনের কাজ করে যাচ্ছেন। যা আমেরিকার সংবিধান পরিপন্থী। সেইজন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। ঐক্যবদ্ধ থেকেই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। তিনি বলেন, আমি আপনাদের সামনে সাথে আসতে পেরে গর্বিত। আপনাদের সুখে- দু:খে পাশে থেকে কাজ করতে চাই। সবার জন্য সমান অধিকার এবং বিচার নিশ্চিত করতে চাই।

উল্লেখ্য, আগামী ২৫ জুন ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। তিনি সবাইকে তাকে ভোট দেয়ার আহবান জনান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here